বাংলাদেশ, , শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২

কুমড়োর খোলে নদী পার!

আলোকিত কক্সবাজার ।।  সংবাদটি প্রকাশিত হয়ঃ ২০১৫-০৯-২২ ১০:০৮:৩৬  

আলোকিত কক্সবাজার ডেক্স:

ছবি: সংগৃহীত

ডিঙ্গা বেয়ে নদী পারি দেয় মানুষ। কিন্তু নিজের খামারে ফলানো সব্জির খোলকে ডিঙ্গা বানিয়ে নদীপথে  পাড়ি জমানোর  দৃশ্য দেখেছেন কখনো? আর সেটি যদি হয় একটা ঢাউস কুমড়ো তাহলে? হ্যাঁ মশাই, সেটাই করে দেখিয়েছেন এক আমেরিকান চাষী। বাড়ি তার ম্যাসাচুসেটস অঙ্গরাজ্যে। তিনি তার খামারে ফলানোর ঢাউস কুমড়োটির খোলে বসে রাইনহ্যাম থেকে টাউনটন পর্যন্ত পাড়ি দিয়েছেন ৭ মাইল পথ।চলতি মাসের ৫ তারিখে তিনি এই চমৎকার কাণ্ডটি করে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন। আর সংবাদ মাধ্যমের লাইমলাইটেও তাই উঠে এসেছেন তিনি।

যে কুমড়োর খোলটি তিনি তার ডিঙ্গা হিসেবে ব্যবহার করেছেন সেটির জন্য পুরস্কারও পেয়েছিলেন। ওটির ওজন ৮১৭ পাউন্ড। ভাবুন একবার, একটা কুমড়ো কতো বড়ো হলে তার ওজন এতো বেশি হয় আর তার ফাঁপা খোলের ভেতরে আস্ত একটা মানুষ বসে একে ডিঙ্গি নৌকা বানিয়ে এতোটা খরস্রোতা নদীপথ পাড়ি দিতে পারে।
এই ঢাউস কুমড়োর মালিকের নাম টড স্যান্ডস্ট্রাম। তার ইচ্ছে তিনি তার পুরস্কার জেতা কুমড়োটিকে আরো একটা বড় পুরস্কার কব্জা করবেন। সেই পুরস্কারটি হলো গিনেস পুরস্কার।এটা করতে পারা মানে বিশ্বসেরার তালিকায় নিজের নামটি লেখানো। আরও একটা উদ্দেশ্য তার ছিল, স্থানীয় পর্যায়ে কৃষিতে সচেতনতা বাড়ানো।মানে তিনি চান স্থানীয়ভাবে উপাদিত কৃষিপণ্য যেন লোকে আরো বেশি বেশি কেনে। আর সেজন্য তিনি বেছে নিয়েছেন এই অদ্ভুত স্টান্ট।

৪২ বছর বয়সী স্যান্ডস্ট্রাম একটি পত্রিকাকে তার ইচ্ছের কথা জানিয়েছেন এভাবে: “এই দৃশ্যটা দেখে একটা পিচ্চি ছেলেও যদি এঁদো জলে নেমে আসতে চায় তবেই আমার উদ্দেশ্য সার্থক। আমার উদ্দেশ্য যেহেতু পিচ্চি ছেলেপুলেকে এটা দেখিয়ে নোংরা জলে নেমে আসতে প্ররোচিত করা। সেইসঙ্গে লোকজন যেন স্থানীয় পর্যায়ের কৃষিজ উৎপাদনের পৃষ্ঠপোষকতায় এগিয়ে আসে সে ব্যাপারে উদ্বুদ্ধ করা।’’

অবশ্য কুমড়োর খোলকে ডিঙ্গি বানানোর ঘটনা এটাই প্রথম নয়। ২০১৩ সালে এক ব্রিটিশ নাগরিক আইল অব ইউট-এ কুমড়ো ভাসিয়েছিলেন। তবে তাতে একটা আউটবোর্ড মোটরও জুড়ে দিয়েছিলেন।


পূর্ববর্তী - পরবর্তী সংবাদ
                                       
ফেইসবুকে আমরা