বাংলাদেশ, , শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩

মিস্টার বিন লুক অ্যালাইক

আলোকিত কক্সবাজার ।।  সংবাদটি প্রকাশিত হয়ঃ ২০১৫-০৯-২২ ১০:০৬:৩৬  

নিউজ ডেস্ক
টিভি দেখেন, মুভি দেখেন অথচ মিস্টার বিনকে চেনেন না এমন লোক দুনিয়ায় কজন আছেন? তার কৌতুকে মজে আছে সারা দুনিয়া। পূর্ব থেকে পশ্চিম গোলার্ধ সবখানেই তার কাণ্ডকীর্তি দেখে হো-হো হাসির রোল ওঠে। এবার তার মতোই অবিকল একজনকে পাওয়া গেছে। আসল মিস্টার বিনের ট্রেডমার্ক জ্যাকেট আর লাল টাইশোভিত তিনি হয়তো নন, কিন্তু চেহারায় এতো মিল যে মনে হবে মিস্টার বিনের ডিএনএ থেকেই বুঝিবা ক্লোন করা হয়েছে তাকে।

মিস্টার বিনের মতো তিনিও একজন ব্রিটিশ। তবে বয়সে তরুণ। ওই তরুণকে খুঁজে বের করার কৃতিত্বটাও আসল মিস্টার বিনের। তিনি নিজেই তার একজন লুক অ্যালাইক খুঁজে বেড়াচ্ছিলেন। অবশেষে স্বজাতির মধ্যেই অবিকল চেহারার এই তরুণকে পাওয়া গেল অবশেষে।

মিস্টার বিন হিসেবে আমরা যাকে চিনি, বাস্তব জীবনে তার নাম আসলে রোয়ান অ্যাটকিনসন। অক্সফোর্ডের কুইন্স কলেজের ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিঙয়ের ছাত্র থাকাকালে তিনি হঠাৎই ১৯৯০ সারে তার কৌতুকের ডালি নিয়ে আবির্ভূত হলেন ‘মিস্টার বিন’ নামের নতুন পরিচয়ে। আবির্ভাবেই করলেন বাজিমাত।

এরপর থেকে বিশ্বব্যাপী নির্মল কৌতুকের ব্র্যান্ডনেম হয়ে আছেন তিনি। মুভি, বইপত্তর, টিভি কমার্শিয়াল, মিউজিক ভিডিও সবকিছুতেই তিনি একমেবাদ্বিতীয়ম। সে সুবাদে অতি সাধারণ মধ্যবিত্তের জীবন বদলে গিয়ে তিনি হয়ে গেলেন রীতিমতো এক ধনাঢ্য ব্যক্তি। দুনিয়ার অতি সাধারণ মানুষ থেকে সবচেয়ে ক্ষমতাধর ব্যক্তিরাও এখন তার ফ্যান।

গত সপ্তাহে রোয়ান অ্যাটকিনসন বাকিংহ্যাম প্রাসাদে মিস্টার বিন হিসেবে আবির্ভাবের ২৫ বছর পূর্তি উদযাপন করেছেন।

তো মিস্টার বিনের লুক অ্যালাইক এই তরুণও কম যান না। শুধু অবিকল চেহারার কারণে তিনিও এখন খ্যাতির সিঁড়িতে পা রাখতে চলেছেন। কে জানে এই চেহারার অবিকলত্বই হয়তো তাকেও এনে দেবে খ্যাতি, অর্থ আর লোকের ভালোবাসা। তবে তার নাম পরিচয়টা জানায়নি সংবাদ মাধ্যম।


পূর্ববর্তী - পরবর্তী সংবাদ
                                       
ফেইসবুকে আমরা