বাংলাদেশ, , শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২

৬৫০ কোটি টাকা আত্মসাতে ১৮ মামলা দুদকের বেসিক ব্যাংকে জালিয়াতি

আলোকিত কক্সবাজার ।।  সংবাদটি প্রকাশিত হয়ঃ ২০১৫-০৯-২২ ০৯:১০:১৭  

আলোকিত কক্সবাজার ডেক্স:
1442898486বেসিক ব্যাংকের চারটি শাখায় অর্থ জালিয়াতি, অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে এক দফায় ১৮টি মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। গতকাল সোমবার বিকালে দুদকের উপ পরিচালক মাহবুবুল আলম, সহকারী আশিকুর রহমান ও উপ-সহকারী পরিচালক মুহাম্মদ জয়নাল আবেদীন, নাসির উদ্দিন বাদী রাজধানীর গুলশান, মতিঝিল ও পল্টন থানায় দুদকের পক্ষ থেকে মামলাগুলো দায়ের করেছেন। এসব মামলায় বেসিক ব্যাংকের সাড়ে ছয়শ কোটি টাকার অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ করা হয়েছে। মামলাগুলোতে ১৫৩ জনকে আসামি করা হয়েছে। এই কেলেঙ্কারির ঘটনায় ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান শেখ আবদুল হাই বাচ্চুর নাম ব্যাপকভাবে উচ্চারিত হলেও কোনো মামলায় তাকে আসামি করা হয়নি। তবে অধিকাংশ মামলাতে ব্যাংকটির সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ফখরুল ইসলামকে আসামি করা হয়েছে। এর বাইরে আসামিদের মধ্যে রয়েছেন উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক (ডিএমডি) ফজলুল সোবহান, কনক কুমার পুরকায়স্থ ও এ মুনায়েম খান, ব্যাংকের শান্তিনগর শাখার এজিএম এস এম আনিসুর রহমান চৌধুরী, সাবেক ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ আলী, গুলশান শাখার শাখা ব্যবস্থাপক শিপার আহমেদ, এ শাখার ক্রেডিট ইনচার্জ এস এম জাহিদ হাসানসহ ঋণ নেয়া ১৮টি কোম্পানির চেয়ারম্যান, ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং বেসিক ব্যাংকের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের আসামি করা হয়েছে। এর মধ্যে অনেকেই একাধিক মামলার আসামি। আজ মঙ্গলবার ও আগামী বুধবার দুদক আরও মামলা দায়ের করবে বলে জানা গেছে।

 

দুদক সূত্র জানায়, বেসিক ব্যাংকের জালিয়াতির মাধ্যমে ঋণ গ্রহণকারী অভিযুক্ত প্রতিষ্ঠানের নামের তালিকায় রয়েছে ডায়নামিক টিস্যু ইন্ডাস্ট্রিজ, ওয়াটার হেভেন করপোরেশন, আজাদ ট্রেডিং, এ্যানজেল এ্যাগ্রো ফিড, প্রাসাদ নির্মাণ, বাবি সুয়েটার্স, দিয়াজ হোটেল এ্যান্ড রিসোর্ট, মৌলি ফ্যাশন, এস এল ডিজাইনার, বেনিসন ইন্টারন্যাশনাল, এআরএসএস এন্টারপ্রাইজ, এস এ্যান্ড জে স্টিল, আশিয়ান শিপিং বিডি, এসএফজি শিপিং লাইন, ইএফএস ইন্টারন্যাশনাল, ধ্রুব ট্রেডার্স, আজবিহা এ্যাগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ, বর্ষণ এ্যাগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ, অনলাইন প্রপার্টিজ, নীল সাগর এ্যাগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ, রূপায়ন হাউজিং এস্টেট, ইয়ুথ এ্যাগ্রো ফার্ম, রাসু ইন্টারন্যাশনাল, আরআই এন্টারপ্রাইজ, এক্সিভ ট্রেড, হার্ব হোল্ডিংস, হাসিব এন্টারপ্রাইজ, হক ট্রেডিং, রুদ্র স্পেশাইলাজড কোল্ডস্টোরেজ, গুঞ্জন এ্যাগ্রো এরোমেটিক অটোরাইস মিল, এলআর ট্রেডিং, টেলিউইজ ইন্টারন্যাশনাল, বেনিকো সোলার এনার্জি, ইন্টারন্যাশনাল, টেকনো ডিজাইন এ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট, শিফন শিপিং লাইন, মা টেক্স, এস রিসোর্সেস শিপিং লাইন, এস সুহি শিপিং লাইন, প্রফিউশন টেক্সটাইল, সিনটেক্স, লিটল ওয়ার্ল্ড লিমিটেড, ফারসে ইন্টারন্যাশনাল, বিএস ট্রেডিংসহ আরও কিছু প্রতিষ্ঠান।

 

মতিঝিল থানায় দুদকের উপসহকারী পরিচালক মুহাম্মদ জয়নাল আবেদীন বাদী হয়ে দায়েরকৃত মামলায় ২০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ১০ জনকে আসামি করা হয়েছে। উপপরিচালক  মুহ মাহবুবুল আলম বাদি হয়ে দায়েরকৃত মামলায় ৪৪ কোটি ৩১ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ৮ জনকে আসামি করা হয়েছে। মাহবুবুল আলমের দায়ের করা অপর এক মামলায় ১৪ কোটি ৪০ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ৯ জনকে আসামি করা হয়েছে। উপ সহকারী পরিচালক এ, কে, এম, ফজলে হোসেন এর দায়ের করা মামলায় ২২ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ৮ জনকে আসামি করা হয়েছে। তার অপর মামলায় ২০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ১০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

 

এদিকে গুলশান থানায় দুদকের উপসহকারী পরিচালক মুহাম্মদ জয়নাল আবেদীন বাদী হয়ে দায়েরকৃত একটি মামলায় ৩০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ৯ জনকে আসামি করা হয়েছে। তার অপর মামলায় ৫২ কোটি ৯৮ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ১১ জনকে আসামি করা হয়েছে। তার দায়ের করা আরেকটি মামলায় ৮৩ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ৭ জনকে আসামি করা হয়েছে। তার দায়ের করা ৪ নম্বর মামলায় ৪ কোটি ২৪ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ৬ জনকে আসামি করা হয়েছে। তার ৫ নম্বর মামলায় ৭৭ কোটি ৪৪ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ৭ জনকে আসামি করা হয়েছে। তার ৬ নম্বর মামলায় ৪৪ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ৯ জনকে আসামি করা হয়েছে। তার ৭ নম্বর মামলায় ২৫ কোটি ৫৯ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ৮ জনকে আসামি করা হয়েছে। তার ৮ নম্বর মামলায় ৬১ কোটি ৪০ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ৯ জনকে আসামি করা হয়েছে।

 

অপর দিকে পল্টন মডেল থানায় দুদকের উপপরিচালক মুহঃ মাহবুবুল আলম বাদী হয়ে দায়ের করা মামলায় ৭৮ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ১০ জনকে আসামি করা হয়েছে। তার দায়ের করা ২ নম্বর মামলায় ৮৯ কোটি ২৭ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ৭ জনকে আসামি করা হয়েছে। দুদকের উপসহকারী পরিচালক এ, কে, এম, ফজলে হোসেন এর দায়ের করা মামলায় ৮ জনকে আসামি করা হয়েছে। তার দায়ের করা অপর দুটি  মামলায় ৫৫ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ৯ জন করে মোট ১৮ জনকে আসামি করা হয়েছে।

 

উল্লেখ্য, বেসিক ব্যাংকে প্রায় চার হাজার কোটি টাকা জালিয়াতির ঘটনায় দীর্ঘ অনুসন্ধান শেষে গত ৮ সেপ্টেম্বর ৫৪ মামলা অনুমোদন দেয় কমিশন। পরে আরও দুটি মামলার অনুমোদন দেয়া হয়। অনুমোদন হওয়া এজহারের মধ্যে গতকাল সোমবার ১৮টি মামলা দায়ের হলো।

পূর্ববর্তী - পরবর্তী সংবাদ
                                       
ফেইসবুকে আমরা