বাংলাদেশ, , বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২

ইসলামী ব্যাংকে কর্মরত জামায়াতের কর্মীদের ছাঁটাইয়ের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার

আলোকিত কক্সবাজার ।।  সংবাদটি প্রকাশিত হয়ঃ ২০১৫-০৯-২২ ০৮:৩৪:৩৫  

নিজস্ব প্রতিবেদক॥
ইসলামী ব্যাংকের কর্মরত জামায়াতের সক্রিয় কর্মীদের চিহ্নত করে ছাঁটাইয়ের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এর অংশ হিসেবে সারা দেশের ন্যায় কক্সবাজারে ইসলামী ব্যাংকের ৮টি শাখার আড়াই শতাধিক কর্মকর্তা-কর্মচারীর তথ্য সংগ্রহ করেছে পুলিশ। এতে ইসলামী ব্যাংকের কর্মকবর্তা কর্মচারীদের মধ্যে অধিকাংশই জামায়াত শিবিরের রাজনীতিরে সাথে সংশ্লিষ্টাতার প্রমাণ পাওয়া গেছে বলে তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্রে নিশ্চিত করা গেছে। জানা যায়, খোদ ইসলামী ব্যাংক বাংরাদেশের (আইবিবিএল) ভাইস প্রেসিডেন্ট ইউসুফ আল রাজির সম্মতিতেই ব্যাংক থেকে জামায়াত সংশ্লিষ্টদের সরিয়ে দেয়ার পথে হাঁটছে সরকার। এদেিক ইসলামী ব্যাংক থেকে জামায়াত সংশ্লিষ্টদের অপসারণের খবর এবং পুলিশের তদন্তের পর কর্মকর্তা কর্মচারীদের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে।  ব্যাংকে কর্মরত এসব কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা বলেছেন তারা অতীতে ছাত্র জীবনে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সাথে সংশ্লিষ্ট থাকলেও বর্তমানে কেউ সক্রিয় রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত নন। কোন অপরাধে জড়িয়ে পড়লে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারে প্রশাসন। কিন্তু জামায়াতের সাথে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ তুলে চাকুরি থেকে অপসারণ করলে তা হবে অন্যায়, অীবচার ওঅমানবিক। তবে এ বিষযে বিস্তারিত কথা বলতে চাননি ইসলামী ব্যাংক কক্সবাজার শাখার ব্যবস্থাপক মো: আবদুল নাসের। তিনি বলেন কেউ তদন্ত করলেও করতে পারে। কিন্তু এ বিষয়ে কেউ আমার কাছে আসেনি। এ প্রসঙ্গে কক্সবাজার মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আসলাম হোসেন বলেন, ইসলামী ব্যাংকের বিষয়টি তদন্ত শেষ করা হয়েছে। এটি একটি নিয়মিত কর্যক্রম। প্রতি মাসেই তদন্ত প্রতিবেদন দিতে হয় উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষকে।
সূত্রে জানা যায়, ইসলামী ব্যাংকের চাকুরিজীবীদের মধ্যে যারা জামায়াত ইসলামী রজানীতির কর্মকান্ডের সাথে সক্রিয়ভাবে যুক্ত তাদের চিহ্নিত করা হচ্ছে। আর এ কাজটি কার হচ্ছে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশের ভাইস প্রেসিডেন্ট ইউসুফ আল রাজির সম্মতিতেই। সম্প্রতি সৌদি আরবে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম মসী (আইবিবিএলের) ভাইস প্রেসিডেন্টের সাথে সাক্ষাৎ করেন। সাক্ষাৎকালে ব্যাংকটি থেকে জামায়াতপন্থী বোর্ড সদস্য পরিচালক ও কর্মকর্তাদের অপসারণের উদ্যোগ নিতে ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রস্তুত আছেন বলে জানিয়েছেন। এক্ষেত্রে তিনি সরকারের সহযোগিতা কামনা করেছেন। পুরো বিষয়টি অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতকে একটি আধা সরকারী চিটি’র মাধ্যমে জনিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। এদিকে আইবিবিএল ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গেল মাসের শুরুতে পুলিশের বিশেষ শাখা এসবি ইসলামী ব্যাংকের প্রধান কার্যালয় থেকে সব কর্মকর্তা কর্মচরীর নাম ঠিকানাসহ বিস্তরিত বিবরণ সহংগ্রহ করেছে। এসবের পর একজন অতিরিক্ত উপ-মহাপরিদর্শকের নেতৃত্বে এ কাজ করা হয়। কর্মকর্তাদের নাম ঠিকানা অনুযায়ী এসব নথির অনুলিপি সব থানায় পাঠানো হয়েছে। চিহ্নিত কর্মকর্তা কর্মচারীর স্থায়ী ঠিকানায় রাজনৈতিক পরিচয় সম্পর্কে নিশ্চিত হওযার পর অপসারণ করা হতে পরে। ব্যাংককে কর্মরত কর্মকর্তাদের সধ্যে অনেকেই সক্রিয়ভাবে জামায়াত ইসলামীর সাথে জড়িত বলে সরকারের প্রভাবশালী বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা আশংকা প্রকাশ করেছে। অর্থমন্ত্রী তাই সংশ্লিষ্টদের আইবিবিএলের কর্মরত জামায়াতপন্থীদের চিহ্নিত করে অপসারণের জন্য ব্যাংকটির ভাইস প্রেসিডেন্টের সঙ্গে রিয়াদের কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করে বিষয়টির ফায়সালা করেন। জুলাই মাসের ১১ তারিখে অর্থমন্ত্রীকে লিখেছেন সৌদি আবরবে নিযুক্ত বাংলাদেরশের রাষ্ট্রদূত গোলাম মসী জানিয়েছেন আপনার নির্দেশ মোতাবেক তিনি সম্প্রতি ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের ভাইস প্রেসিেিডন্ট ইউসুফ আল রাজির সঙ্গে তার রিয়াদের কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করেছেন। এসময় মতবিনিময়কালে ইউচুফ আল রাজি আইবিবিএল’র বোর্ড সদস্য পরিচালক ও কমৃকর্তাদের মধ্যে যারা জামায়াত ইসলামী বাংলাদেশ এর কর্মকান্ডের সঙ্গে সক্রিযভাবে যুক্ত তাদের ব্যাংকের কার্যক্রম থেকে অপসারণের উদ্যোগ নিতে তিনি সম্মত হয়েছেন বলে রাষ্ট্রদূতকে জানিয়েছেন। একই সঙ্গে এ ধরণের ব্যক্তিদের শনাক্ত কারার ক্ষেত্রে তাকে সাহায্য করার জন্য অনুরোধ করেন।


পূর্ববর্তী - পরবর্তী সংবাদ
                                       
ফেইসবুকে আমরা