শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ০৬:৫২ অপরাহ্ন

তারেকের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করলে আন্দোলন : রিজভী

তারেকের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করলে আন্দোলন : রিজভী

অনলাইন বিজ্ঞাপন

আলোকিত কক্সবাজার ডেক্স

তারেক রহমানের সম্পদ অনুসন্ধানে দুদকের নতুন উদ্যোগকে নতুন ষড়যন্ত্র আখ্যা দিয়ে তারেকের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করলে বিএনপি আন্দোলন কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবে বলে জানিয়ে দিয়েছেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। ”হুঁশিয়ার হয়ে যান, সাবধান হয়ে যান, অনেক তামাশা করেছেন, অনেক ইয়ার্কি করেছেন। আর কোনো তামাশা করবেন না।” দুর্নীতি দমন কমিশনকে (দুদক) এভাবে হুঁশিয়ার করেছেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তাঁর অভিযোগ, দুদককে দিয়ে দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সম্পদ অনুসন্ধানের মাধ্যমে নতুন ষড়যন্ত্র হচ্ছে। আজ শুক্রবার সকাল ১১টার দিকে বগুড়া শহরের নওয়াববাড়ি সড়কে জেলা বিএনপির কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে রিজভী এসব কথা বলেন।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির এই নেতা দুদকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ তুলে ধরেন। তিনি বলেন, দুদক একটি বিষধর সাপ। এর একদিকে আছে বিষ, অন্যদিকে নির্লজ্জ ক্ষমা। বিষাক্ত দিক দিয়ে দুদক সরকারের আজ্ঞাবহ হয়ে বিএনপির হাজার হাজার নিরীহ নেতাকর্মীকে দংশন করছে। ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দিয়ে নেতাকর্মীদের জেলে পাঠাচ্ছে। আরেক দিকে সরকারের নির্দেশে বিষহীন লেজ দিয়ে পরীক্ষিত দুর্নীতিবাজদের ক্ষমা করে দিচ্ছে। উদারতা দেখাচ্ছে।

রিজভী অভিযোগ করেন, ”দুদকের এই নির্লজ্জ উদারতায় হলমার্ক কেলেঙ্কারির সঙ্গে জড়িত, পদ্মা সেতু কেলেঙ্কারির সঙ্গে জড়িত সরকারের মন্ত্রী, রাঘববোয়ালেরা পার পেয়ে গেছেন। সরকারি দলের সাড়ে সাত হাজার দুর্নীতিবাজ নেতার অপকর্ম ধুয়েমুছে ছাপ করে দিয়েছে এই মেরুদণ্ডহীন দুমুখো দুদক।”

তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করলে বিএনপি আন্দোলন কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবে উল্লেখ করে রুহুল কবির রিজভী বলেন, ”আওয়ামী লীগের আজ্ঞাবহ ফখরুদ্দীন সরকার দুই বছর ক্ষমতায় ছিল, তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দুর্নীতির কোনো প্রমাণ হাজির করতে পারেনি। অবৈধ কোনো সম্পদের অস্তিত্ব পায়নি। তারেক রহমানের কোনো অবৈধ সম্পদ থাকলে আওয়ামী লীগ এত দিন বসে থাকত না। এত দিন পর দুদককে দিয়ে তারেক রহমানের অবৈধ সম্পদ অনুসন্ধান করা হচ্ছে। এটা বিএনপির বিরুদ্ধে সরকারের নতুন ষড়যন্ত্র।” বক্তব্যে পৌরসভা নির্বাচনে আবারও কারচুপির অভিযোগ করেন রিজভী।

সংবাদ সম্মেলনে বগুড়া জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন, বগুড়া পৌরসভার মেয়র এ কে এম মাহাবুবুর রহমান, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আলী আজগর তালুকদার, জেলা বিএনপির সহসভাপতি ফজলুল বারী তালুকদার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

নিবন্ধনের জন্য আবেদিত
Desing & Developed BY MONTAKIM