বৃহস্পতিবার, ২৫ Jul ২০২৪, ১০:৪০ অপরাহ্ন

কুতুবদিয়ায় আরজু হত্যার ঘটনায় মামলা; গ্রেফতার-১

কুতুবদিয়ায় আরজু হত্যার ঘটনায় মামলা; গ্রেফতার-১

অনলাইন বিজ্ঞাপন

প্রতিকী ছবি।

 

শাহেদুল ইসলাম মনির,কুতুবদিয়া

কক্সবাজার কুতুবদিয়ায় এনজিও মিটিং চলাকালীন ভাতের প্যাকেট বিতরণে কম-বেশী নিয়ে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে ইউপি সদস্যের ছুরিকাঘাতে ফারহাদুল ইসলাম আরজু (২০) হত্যার ঘটনায় ১২ জনকে আসামি করে মামলা করা হয়েছে। এ ঘটনায় মৃত ছৈয়দুল হকের ছেলে সাদেক হোসেন (৩৬)কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গত ২৩ মে নিহত ফারহাদুল ইসলাম আরজু মা আমেনা বেগম বাদী হয়ে কুতুবদিয়া থানায় এ মামলা করেছেন।

মামলায় আলী আকবর ডেইল ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোশারারফ হোসাইনসহ ১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। অজ্ঞাত নামা আরও রয়েছে ৪ জন। মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কুতুবদিয়া থানার অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) গোলাম কবির।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার (২৩ মে) দুপুরে উপজেলার আলী আকবর ডেইল শান্তি বাজার এলাকায় ভাতের প্যাকেট বিতরণকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের সংঘর্ষ হয়। ঐসময় ইউপি সদস্য মোশারারফের ছুরিকাঘাতে খুন হয় ফারহাদুল ইসলাম আরজু।

মামলার বাকি আসামীরা হলেন, আলী আকবর ডেইল ঘাটকুল পাড়া মৃত নজরুল ইসলাম ছেলে শেফায়েত (৩৮),মৃত মাসুদ ছেলে বাবু (২৩), মোঃ টিপু ছেলে পরাগ (২২),আবদুল হাদি সিকদার পাড়া এলাকার মৃত ছৈয়দুল হক ছেলে সাজ্জাদ হোসেন (৪০), মৃত ছৈয়দুল হক ছেলে শাহাব উদ্দিন (৫৫), দেলোয়ার হোসেন (৩৮), শাহাব উদ্দিনের ছেলে মোবারক হোসেন (৩৫), মহি উদ্দিন (২৮), মৃত ছৈয়দুল হকের ছেলে সাদেক হোসেন (৩৬), ঘাটকুল পাড়া এলাকার মোঃ টিপু ছেলে রিয়াম (২৫), মৃত মকবুল আহমদের ছেলে মোঃ টিপু (৪৮)।

এ ঘটনায় গুরুতর আহত অবস্থায় চট্রগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে আলি আকবর ডেইল ইউনিয়নের ৩নং ওয়াড়র্ের গোলাম কুদ্দুসের ছেলে তাহশিপ (১৮), আনিচুর রহমানের ছেলে নিশাত (১৭), মোস্তাক আহমেদের ছেলে ফোরকার আলি (১৮)।

মামলা এজাহার সূত্র জানা গেছে, আলী আকবর ডেইল ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোশারারফ হোসাইন ও তার পরিবারসহ সন্ত্রাসী বাহিনীর সদস্যদের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল। গত বৃহস্পতিবার এর মধ্যে এনজিও মিটিং চলাকালে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে মোশারারফ হোসাইনের নেতৃত্বে অস্ত্র নিয়ে ফারহাদুল ইসলাম আরজু ওপর হামলা করা হয়। তাকে রক্ষা করতে আত্মীয় স্বাজনরা এগিয়ে এলে তাদেরও কুপিয়ে জখম করা হয়। এসময় ইউপি সদস্য মোশারারফ হোসাইনের ছুরিকাঘাতে ঘটনাস্থলে খুন হয় আরজু। হত্যাকাণ্ডের পর মোশারারফ ও তার পরিবারসহ বাহিনীর সদস্যরা পালিয়ে যান।

কুতুবদিয়া থানার ওসি গেলাম কবির বলেন, এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ১২ জনকে আসামি করে মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অভিযান চলমান রয়েছে বলে জানান তিনি।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

নিবন্ধনের জন্য আবেদিত
Desing & Developed BY MONTAKIM