বৃহস্পতিবার, ২৫ Jul ২০২৪, ০৯:০৭ অপরাহ্ন

চ্যাম্পিয়ন্স লিগ থেকে বার্সার বিদায়

চ্যাম্পিয়ন্স লিগ থেকে বার্সার বিদায়

অনলাইন বিজ্ঞাপন

নিজের দ্বিতীয় গোলের সময় এমবাপ্পে। ছবি : সংগৃহীত

 

বার্সেলোনার জন্য কাজটি কঠিন ছিল না। ঘরের মাঠে পিএসজির বিপক্ষে শুধু হার এড়োলেই চলত জাভি হার্নান্দেজের শিষ্যদের। তাহলেই ২০১৮/১৯ মৌসুমের পর আবারও ইউরোপের ক্লাবগুলোর এলিট প্রতিযোগিতা উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনাল নিশ্চিত হতো স্প্যানিশ জায়ান্টদের। তবে শেষ পর্যন্ত তা করে দেখাতে পারল না জাভির শিষ্যরা। ঘরের মাঠে পিএসজির কাছে রীতিমতো বিধ্বস্ত হয়ে এই মৌসুমের জন্য চ্যাম্পিয়ন্স লিগ থেকে বিদায় নিল পাঁচবারের চ্যাম্পিয়নরা।

মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) বার্সেলোনার হোম গ্রাউন্ড অলিম্পিক স্টেডিয়ামে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনালের দ্বিতীয় লেগের খেলায় বার্সেলোনাকে ৪-১ (৬-৪) গোলে হারিয়ে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছে পিএসজি। ফরাসি চ্যাম্পিয়নদের হয়ে কিলিয়ান এমবাপ্পে জোড়া গোল করেন। বাকি গোল দুটি এসেছে ডেম্বেলে ও ভিতিনহার কাছ থেকে। বার্সার হয়ে ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড রাফিনহা একটি গোল করেন।

৩-২ গোলের লিড নিয়ে ম্যাচ শুরু করা বার্সেলোনা ম্যাচের ১২ মিনিটেই লিড পেয়ে যায়। আগের লেগের জয়ের নায়ক রাফিনহা এই ম্যাচেও গোল করে বার্সা সমর্থকদের সেমিফাইনালের স্বপ্ন দেখাতে থাকেন তিনি। তবে তার গোলের তিন মিনিট পর থেকেই বার্সার বিপদের শুরু।

দুই লেগ মিলিয়ে ৪-২ গোলে এগিয়ে থাকা লা লিগা চ্যাম্পিয়নরা ম্যাচের ১৫ মিনিটে ১০ জনের দলে পরিণত হয়। বক্সের বাইরে বিপজ্জনক জায়গায় পিএসজির বারকোলাকে ফাউল করে সরাসরি লাল কার্ড দেখেন আরাউহো। লাল কার্ডের পর রক্ষণের শক্তি বাড়াতে ইয়ামালকে তুলে ডিফেন্ডার ইনিগো মার্তিনেজকে মাঠে নামান জাভি।

১০ জন নিয়ে খেলতে থাকা বার্সার ওপর চাপ বাড়াতে থাকে পিএসজি। ২৮ মিনিটেই সমতায় ফিরতে পারত ফরাসি চ্যাম্পিয়নরা। তবে দারুণ সেভে ব্যবধান ধরে রাখেন মার্ক-আন্ড্রে টের স্টেগেন। বক্সের ভেতর থেকে এমবাপ্পের ডান পায়ের নিচু শট ফিরিয়ে দেন বার্সা অধিনায়ক।

ম্যাচের ৪০ মিনিটে সমতাসূচক গোলের দেখা পায় পিএসজি। বার্সার সাবেক খেলোয়াড় ডেম্বেলের গোলে সমতায় ফেরে লুইস এনরিকের শিষ্যরা। তবে তখনও দুই লেগ মিলে পিছিয়ে তারা।

বিরতির পর চাপ ধরে রেখে ৫৪তম মিনিটে দুই লেগ মিলিয়ে ৪-৪ গোলে সমতা আনে পিএসজি। গোল করেন ভিতিনহা।

অবশ্য পরের মিনিটে অল্পের জন্য গোল খায়নি পিএসজি। বক্সের বাইরে থেকে নেয়া গুনদোয়ানের শট বাইরের পোস্টে লাগে।

একটু পরই বার্সার বিপদ আরও বাড়িয়ে রেফারির সঙ্গে তর্কে জড়িয়ে লাল কার্ড দেখেন বার্সা কোচ জাভি।

৬১তম মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করে স্কোরলাইন ৩-১ করেন এমবাপ্পে। বার্সারও ম্যাচে ফেরার আশা ক্ষীণ থেকে ক্ষীণতর হতে থাকে।

দুই লেগ মিলিয়ে তখন ৫-৪ গোলে এগিয়ে থাকা পিএসজি ম্যাচের ৮৯ মিনিটে বার্সার কফিনে শেষ পেরেক ঢুকায়। ৮৯তম মিনিটে ডাবল সেভ করেন টের স্টেগেন। মার্কো আসেনসিওর শট ঠেকানোর পর এমবাপ্পের প্রচেষ্টাও রুখে দেন তিনি। তবে বল ক্লিয়ার করতে পারেননি বার্সেলোনার ডিফেন্ডাররা। কাছ থেকে শটে ম্যাচের শেষ গোল করেন এমবাপ্পে।

বার্সাকে কাঁদিয়ে সেমিফাইনালে ওঠা পিএসজির সামনের প্রতিপক্ষ বরুশিয়া ডর্টমুন্ড। কোয়ার্টার ফাইনালের অপর ম্যাচে দুই লেগ মিলিয়ে অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদকে ৫-৪ গোলে হারিয়ে শেষ চারের টিকেট পেয়েছে জার্মান দলটি।

সূত্র-কালবেলা।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

নিবন্ধনের জন্য আবেদিত
Desing & Developed BY MONTAKIM