বুধবার, ২৪ Jul ২০২৪, ০৫:১৫ অপরাহ্ন

ইরান-ইসরায়েল উত্তেজনা চরমে

ইরান-ইসরায়েল উত্তেজনা চরমে

অনলাইন বিজ্ঞাপন

মার্কিন রণতরী। ছবি : সংগৃহীত

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম মিত্র ইসরায়েলে ইরান হামলা করতে পারে এমন শঙ্কায় মধ্যপ্রাচ্যে মোতায়েন মার্কিন রণতরী প্রস্তুতির অংশ হিসেবে অবস্থান পরিবর্তন করতে শুরু করেছে। খবর দ্য টেলিগ্রাফের।

হোয়াইট হাউসের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন কিরবি বলেছেন, ইরানের যে কোনো হামলার জন্য যুক্তরাষ্ট্র পূর্ণাঙ্গ প্রস্তুত রয়েছে। এটা নিশ্চিত করার জন্য মার্কিন রণতরীর অবস্থান পরিবর্তন করা হয়েছে। এ বিষয়ে আর কোনো তথ্য দিতে রাজি হননি তিনি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মার্কিন বিমানবাহী রণতরী ‘ইউএসএস আইজেনহাওয়ার’সহ নৌবাহিনীর আরও যুদ্ধযান বর্তমানে লোহিত সাগর ও ভূমধ্যসাগরে অবস্থান করছে।

বৃহস্পতিবার মার্কিন সংবাদমাধ্যম ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইসরায়েলে হামলার লক্ষ্যে ইরান প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে জানিয়েছেন মার্কিন গোয়েন্দা কর্মকর্তারা। আগামী দুদিনের মধ্যে এ হামলা হতে পারে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের বরাতে সংবাদমাধ্যমটি জানিয়েছে, ইসরায়েলের উত্তর বা দক্ষিণাঞ্চলে এ হামলা হতে পারে। তবে তেহরান তেল আবিবে হামলার ব্যাপারে এখনো চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি বলে ইরান সরকারের ঘনিষ্ঠ সূত্রের বরাতে সংবাদমাধ্যমে জানানো হয়েছে।

এর আগে মার্কিন সংবাদমাধ্যম ব্লুমবার্গের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ইসরায়েলের মার্কিনসহ পশ্চিমা মিত্ররা মনে করে যে দেশটিতে ইরানের ড্রোন বা ক্ষেপণাস্ত্র হামলা অত্যাসন্ন। হামলায় ইসরায়েলের সরকারি বা সামরিক স্থাপনাকে লক্ষ্যবস্তু করা হতে পারে বলেও জানিয়েছেন তারা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি সূত্র ইসরায়েলে ও যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা মূল্যায়নের ভিত্তিতে জানিয়েছে, উচ্চ নির্ভুল লক্ষ্যমাত্রার ক্ষেপণাস্ত্র ইরান সম্ভাব্য এ হামলায় ব্যবহার করতে পারে। আগামী কয়েক দিনের মধ্যে এ হামলা হতে পারে।

আন্তর্জাতিক গোয়েন্দা সংস্থা ও গণমাধ্যমগুলো বলছে, সব ধরনের হামলার প্রস্তুতি নিয়েছে ইরান। যে কোনো সময় মধ্যপ্রাচ্যের যে কোনো জায়গায় ইসরায়েলি স্বার্থে আঘাত হানতে পারে তেহরান। এমন উদ্ভূত পরিস্থিতিতে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোকে সংযত থাকার আহ্বান জানিয়েছে রাশিয়া ও জার্মানি।

প্রসঙ্গত, গত মঙ্গলবার ( ১ এপ্রিল) সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কে ইরানের কনস্যুলেটে বিমান হামলা চালায় ইসরায়েল। এ ঘটনায় ইরানের সশস্ত্র বাহিনীর ইসলামিক রেভল্যুশনারি গার্ড কোরের কয়েকজন কর্মকর্তাসহ নিহত হন ১৩ জন। এ হামলার জন্য ইসরায়েল দায়ী বলে মনে করা হচ্ছে। যদিও ইসরায়েল এ হামলায় দায় স্বীকার করেনি। তবে, ইরান হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছে, এ হামলার জবাব দেওয়া হবে।

সূত্র-কালবেলা।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

নিবন্ধনের জন্য আবেদিত
Desing & Developed BY MONTAKIM