শনিবার, ১৩ Jul ২০২৪, ০৯:৫৯ পূর্বাহ্ন

২১ দিন পর কুমিল্লা থেকে শিশু ছোয়াদ উদ্ধার; আটক-১৭

২১ দিন পর কুমিল্লা থেকে শিশু ছোয়াদ উদ্ধার; আটক-১৭

অনলাইন বিজ্ঞাপন

 

 

টেকনাফে অপহৃত প্রবাসীর ছেলে ছোয়াদ বিন আব্দুল্লাহ (৬)কে ২১ দিন পর কুমিল্লা থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। এ সময় মুক্তিপণের ৪ লাখ টাকা, অপহরণে ব্যবহৃত সিএনজি ও ৪টি মোবাইল ফোন উদ্ধার এবং অপহরণ চক্রের মাস্টার মাইন্ড আনোয়ার সাদেকসহ ১৭ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলো- টেকনাফের মোচনী রেজিস্ট্রার ক্যাম্পের নাগু ডাকাতের ছেলে সাদেক (২১), মৃত আব্দুর শুক্কুরের ছেলে নাগু ডাকাত (৫৫), মো. আলীর স্ত্রী লায়লা বেগম (৫৫), মোহাম্মদ খানের স্ত্রী উম্মে সালমা (২৪), মৃত আবদুল শুক্কুরের ছেলে মোহাম্মদ হাশেম (২৭), সৈয়দুল হকের স্ত্রী খাতিজাতুল খোবরা (৩৫), নাগু ডাকাতের স্ত্রী আয়েশা বেগম (৩২), সাদের স্ত্রী হোসনে আরা (২০), নাগু ডাকাতের ছেলে রনি (১২), কক্সবাজারের ঝিলংঝার দক্ষিণ হাজীর পাড়ার জাফর আলমের ছেলে মো. নাসির আলম (২৮), মহেশখালীর কালামর ছড়ার মাইস্যা ঘোনার মনছুর আলমের ছেলে সালামত উল্লাহ প্রকাশ সোনাইয়া (৪৫), নয়াপাড়ার মৃত লাল মিয়ার ছেলে জহির আহমেদ (৬৫), শামসুল আলমের ছেলে হাসমুল করিম তোহা (২০), সামিরাঘোনার ফরিদুল আলমের ছেলে মোহাম্মদ আতিক উল্লাহ্‌ (১৯), মৃত রাহমত উল্লাহ’র ছেলে ফরিদুল আলম খান (৫২), সালামত উল্লাহ’র ওরফে সোনা মিয়ার ছেলে আমির হোসেন ও কালামর ছড়ার সামশুল আলমের ছেলে তৌহিদুল ইসলাম তোহা।

গতকাল সকাল সাড়ে ১০টায় থানা মিলনায়তনে এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার উখিয়া সার্কেল রাসেল। তিনি জানান, ৯ই মার্চ হ্নীলা ইউনিয়নের পূর্ব পানখালী এলাকা হতে মাদ্রাসা আবু হুরায়রার ১ম শ্রেণির ছাত্র ছোয়াদ বিন আব্দুল্লাহকে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিরা অপহরণ করে। খবর পেয়ে শিশুটি উদ্ধারের জন্য টেকনাফ মডেল থানা পুলিশ অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় পুলিশ জানতে পারে যে, শিশু অপহরণের মাস্টারমাইন্ড আনোয়ার সাদেকের পরিকল্পনায় বাদিনীর ভাড়াটিয়া পুরাতন রোহিঙ্গা নাছের এবং মাজুমার নেতৃত্বে উম্মে সালমা, শাহীন এবং সিএনজি ড্রাইভার নাসির আলম মাদ্রাসা হতে বাসায় যাওয়ার পথে শিশুটিকে অপহরণ করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়। এর প্রেক্ষিতে কক্সবাজার জেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে সিএনজি ড্রাইভার নাছির এবং উম্মে সালমাকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয় পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃতরা জিজ্ঞাসাবাদে জানায়, অপহরণের সঙ্গে আনোয়ার সাদেক, শাহীনসহ তাদের পরিবারের সদস্যরা চক্রের সক্রিয় সদস্য। পরে পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কক্সবাজার ও কুমিল্লা জেলার লালমাই থানার বিভিন্ন এলাকায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে ছোয়াদকে উদ্ধার করে। ঘটনায় জড়িত ইতিমধ্যে অপহরণ চক্রের মাস্টার মাইন্ড আনোয়ার সাদেকসহ ১৭ জন আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এ ছাড়াও অপহরণ চক্রের অন্য সদস্যদের শনাক্ত করা হয়েছে এবং তাদের গ্রেপ্তার অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলেও সংবাদ ব্রিফিংয়ে জানান পুলিশের ওই কর্মকর্তা।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

নিবন্ধনের জন্য আবেদিত
Desing & Developed BY MONTAKIM