বাংলাদেশ, , শুক্রবার, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

চকরিয়ায় বিশেষ সেবা প্রদানে পুলিশের ‘কুইক রেসপন্স টিম’

আলোকিত কক্সবাজার ।।  সংবাদটি প্রকাশিত হয়ঃ ২০১৫-০৯-২১ ১৭:৪৩:৪৯  

চকরিয়া অফিস ঃ
চকরিয়ায় কোরবানীর ঈদকে সামনে রেখে আইন-শৃক্সক্ষলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে স্বাভাবিক কার্যক্রমের পাশাপাশি বিশেষ সেবা প্রদানে গঠন করা হয়েছে তিনটি কুইক রেসপন্স টিম। এই কুইক রেসপন্স টিম চাঁদাবাজি ছাড়াও নানা অপরাধ কর্মকা- রোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। বিশেষ করে ঈদের ছুটিতে যাতে উপজেলার কোথাও কোন ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে এবং নির্বিঘেœ ঈদ উদযাপন করতে পারে সেজন্য আগেভাগে পুলিশ এই ব্যবস্থা নিয়েছে। কোথাও আইন-শৃক্সক্ষলা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ার আশঙ্কার খবর পাওয়া মাত্রই এই কুইক রেসপন্স টিম পৌঁছে যাবে ঘটনাস্থলে। পাশাপাশি থানা পুলিশের নিয়মিত টহল ব্যবস্থাও থাকবে বলে পুলিশ জানিয়েছে।
চকরিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. কামরুল আজম জানান, চকরিয়া উপজেলার ১৮ ইউনিয়ন একটি পৌরসভার প্রায় সাড়ে ৫ লক্ষ মানুষ রয়েছে। প্রতিবছরের মতো এবারের ঈদুল আজহায়ও এসব মানুষ এলাকায় থেকে যাতে নির্বিঘেœ ঈদ উদযাপন করতে পারে সেজন্য পুলিশ সর্বোচ্চ সতর্কাবস্থায় রয়েছে। আইন-শৃক্সক্ষলা পরিস্থিতি যাতে নিয়ন্ত্রণে থাকে এবং কোন অপরাধ কর্মকা- না ঘটে সেজন্য আগেভাগে বিপুল সংখ্যক পুলিশ সদস্যকে মাঠে নামানো হয়েছে। এর পরও কোন দুর্বৃত্তচক্র যদি অপরাধ কর্মকা- সংঘটিত করার চেষ্টা করে তাহলে তা কঠোরভাবে দমন করা হবে।
চকরিয়া থানার ওসি প্রভাষ চন্দ্র ধর জানান, আইন-শৃক্সক্ষলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে প্রতিদিন যে নিয়মে পুলিশ মোবাইল ডিউটিসহ নানা ধরণের তৎপরতা চালায় তাও অব্যাহত থাকবে। পাশাপাশি ঈদুল আজহা উপলক্ষ্যে পুলিশ বিশেষ সেবা প্রদান করবে চকরিয়াবাসীকে। এজন্য ইতিমধ্যে তিনটি কুইক রেসপন্স টিম গঠন করা হয়েছে। এই কুইক রেসপন্স টিমে থাকবেন একজন উপপরিদর্শক (্এসআই), একজন সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) ও চারজন কনষ্টেবলকে। উপজেলার কোথাও কোন ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা বা আইন-শৃক্সক্ষলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটনার সম্ভাবনা দেখঅ দেবে মূলত সেসব ঘটনাস্থলে খুব দ্রুতই পৌঁছে যাবে এই কুইক রেসপন্স টিম।
এ বিষয়ে ওসি প্রভাষ চন্দ্র ধর আরো বলেন, ‘মূলত চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কটি হচ্ছে দেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ মহাসড়ক। এবারের ঈদের ছুটিতে দেশের পর্যটন নগরী কক্সবাজারে ভিড় জমাবে লাখো পর্যটক। তাই এসব পর্যটকের যাত্রাপথে যাতে কোন ধরণের বিশৃক্সক্ষল পরিস্থিতির সৃষ্টি না হয় সেজন্য ইতিমধ্যে পুলিশকে পালাক্রমে দায়িত্ব বন্টন করে দেওয়া হয়েছে। এককথায় চকরিয়াবাসী এবং পর্যটকেরা নির্বিঘে ঈদ আনন্দ উপভোগ করতে পারবে বলে আমি আশা করছি।’
কক্সবাজার সদর সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মো. মাসুদ আলম বলেন, এখন পর্যন্ত চকরিয়া বা আশপাশের কোথাও এ ধরণের কোন অপ্রীতিকর ঘটনা সংঘটিত হয়নি। এর পরেও ঈদের আগে বা পরে যাতে আইন-শৃক্সক্ষলা পরিস্থিতির অবনতি না হয় সেজন্য ঊর্ধতন পুলিশ কর্মকর্তারাও এখন থেকে তদারকি করছেন প্রতি মুহূর্তে। আশা করি এবারের ঈদও নির্বিঘেœ কাটবে সকলের। ##


পূর্ববর্তী - পরবর্তী সংবাদ
                                       
ফেইসবুকে আমরা