শুক্রবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ০৮:১৮ পূর্বাহ্ন

জনগণের প্রতি আস্থা নেই বলে নির্বাচন নিয়ে ষড়যন্ত্র করছে বিএনপি-হানিফ

জনগণের প্রতি আস্থা নেই বলে নির্বাচন নিয়ে ষড়যন্ত্র করছে বিএনপি-হানিফ

অনলাইন বিজ্ঞাপন

ছবি-জেলা আওয়ামী লীগের জনসভায় বক্তব্য রাখছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ।

 

 

ওয়াহিদ রুবেল।।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চাই আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন হবে সকল দলের অংশগ্রহণমূলক অবাধ, নিরপেক্ষ এবং সুষ্ঠু নির্বাচন। কিন্তু বিএনপি-জামায়াত জনগণকে ভয় পায়। জনগণের প্রতি তাদের আস্থা নেই। তাই তারা নির্বাচন নিয়ে ষড়যন্ত্র শুরু করেছে।

হানিফ বলেন, প্রধানমন্ত্রীর মতো বাংলাদেশের বন্ধু রাষ্ট্রগুলোও চাইছে সব দলের অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন। সে নির্বাচনে যারা বাঁধা দিবে তাদের ভিসা বন্ধ রাখবে আমেরিকা। ভিসা বন্ধের ধোঁয়া তুলে বিএনপি-জামায়াত তথ্যের বিভ্রাট ছড়াচ্ছে। বিএনপি যতই ষড়যন্ত্র করুক আগামী নির্বাচন হবে অবাধ, সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ। মূলত বিএনপি জামায়াত নিজেদের নিশ্চিত পরাজয় জেনে নির্বাচন নিয়ে ষড়যন্ত্র শুরু করেছে।

সোমবার (৫ জুন) সন্ধ্যা ছয়টায় কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত “জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর ‘জুলিও কুরি’ পদক প্রাপ্তির ৫০ বছর পূর্তি আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেছেন।

নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য হানিফ বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়ার পথে এগিয়ে যাচ্ছি আমরা। এ চলার পথে দলকে আরো সুসংগঠিত করে আগামী দিনের সকল নির্বাচনে দলের বিজয় ছিনিয়ে আনতে হবে। যারা দলের মধ্যে বিভাজন সৃষ্টি করতে চাই তাদের চিহ্নিত করতে হবে।

ছাত্রদল সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলামের উদাহরণ টেনে হানিফ বলেন, পিতা দলে ত্যাগ স্বীকার করলেও সন্তানরা সবসময় পিতার আদর্শ লালন করে না। যার উদাহরণ ছাত্রদল সভাপতি। তার বাবা এখনো আওয়ামী লীগের কর্মী এবং আওয়ামী লীগ মনোনীত উপজেলা চেয়ারম্যান। আপনার পিতা হয়তো দলের জন্য ত্যাগ করেছেন কিন্তু আপনি কি করেছেন? দলে আপনার ভূমিকা কি ? নির্বাচন আসলেই দলের বিরুদ্ধে ভোট করেন। দলের শৃঙ্খলা নষ্ট করেন। তা হবেনা। দলে বিভাজন সৃষ্টিকারী কাউকে ছাড় দেয়া হব না। আমাদের মনে রাখতে হবে ঐক্যবদ্ধ সুশৃঙ্খল আওয়ামী লীগকে হারানোর ক্ষমতা কারো নেই।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু মানে শক্তি, বঙ্গবন্ধু মানে আদর্শ, বঙ্গবন্ধু মানে স্বাধীনতা, বঙ্গবন্ধু মানে মানবতার বন্ধু, বঙ্গবন্ধু মানে বিশ্ববন্ধু। বঙ্গবন্ধু এদেশের মানুষের মুক্তি জন্য নির্যাতন সহ্য ও কারাভোগ করেছেন। কিন্তু কখনো মাথানত করেন নি। তার নেতৃত্বে আমরা একটি স্বাধীন রাষ্ট্র পেয়েছি। বঙ্গবন্ধুকে নির্মমভাবে হত্যার মধ্য দিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা রুদ্ধ করতে চেয়েছিল ৭১’ এর পরাজিত শক্তি। কিন্তু বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা পিতার অসমাপ্ত কাজ শেষ করে বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ রাষ্ট্রে পরিণত করতে কাজ করে যাচ্ছেন।

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এড. ফরিদুল ইসলাম চৌধুরীর সভাপতিত্বে এ সময় বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক এড. সিরাজুল মোস্তফা, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক আহবায়ক ও সাবেক জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তাক আহমেদ চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কক্সবাজার পৌরসভা মেয়র মুজিবুর রহমান, কক্সবাজার সদর-রামু আসনের সংসদ সদস্য সায়মুম সরওয়ার কমল, মহেশখালী-কুতুবদিয়া আসনের সাংসদ আশেক উল্লাহ রফিক, সংরক্ষিত মহিলা সাংসদ কানিজ ফাতিমা আহমেদ মোস্তাক, জেলা যুবলীগের সভাপতি সোহেল আহমেদ বাহদুর, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এসএম সাদ্দাম হোসাইন এবং সাধারণ সম্পাদক মারুফ আদনানসহ আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতারা।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

নিবন্ধনের জন্য আবেদিত
Desing & Developed BY MONTAKIM