মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ০২:১৩ পূর্বাহ্ন

চকরিয়ায় শিশু নয়ন মণি হত্যাকান্ডের ঘটনায় থানায় মামলা, গ্রেপ্তার-১

চকরিয়ায় শিশু নয়ন মণি হত্যাকান্ডের ঘটনায় থানায় মামলা, গ্রেপ্তার-১

অনলাইন বিজ্ঞাপন

মনজুর আলম, চকরিয়া

চকরিয়ায় তৃতীয় শ্রেণিতে পড়–য়া স্কুলছাত্রী নয়ন মণিকে (১১) অপহরণের পর হত্যার অভিযোগ এনে থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। দুইজনের নাম উল্লেখ এবং আরো ৬-৭জনকে আসামী করে দায়ের করা মামলার এজাহারনামীয় এক আসামীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এই হত্যাকাÐের আদ্যোপান্ত জানতে গ্রেপ্তারকৃত আসামীকে রিমান্ডে নেওয়া হবে বলে পুলিশ জানিয়েছে। গত বৃহস্পতিবার রাতে নিহত শিশু নয়ন মণির মা রহিমা বেগম বাদী হয়ে অপহরণের পর হত্যার অভিযোগে মামলাটি দায়ের করেন। এর পর রাতেই অভিযান চালিয়ে এক আসামীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।
এজাহারে দাবি করা হয়েছে, গত ১৪ নভেম্বর সকালে শিশু নয়ন মণি প্রতিদিনের মতো স্কুলে যাওয়ার জন্য ডুলাহাজারা ইউনিয়নের ভিলেজার পাড়াস্থ নিজ বাড়ি থেকে বের হয়। কিন্তু সকাল সাড়ে ১১টা থেকে পরবর্তী যে কোন সময় শিশুটিকে অপহরণ করে একটি টমটম গাড়িতে করে পূর্বদিকে পাহাড়ি এলাকায় নিয়ে যায়। কিন্তু সন্ধ্যার পর শিশুটির লাশ পাওয়া যায় ডুলাহাজারার লালমাটি পাহাড়ের কাছে রাস্তা সংলগ্ন উত্তর পাশে। এর পর স্থানীয় লোকজনের কাছ থেকে জানার পর পুলিশ গিয়ে শিশুটির লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। এর আগে পুলিশের সুরতহাল প্রতিবেদনে শিশুটির গোপনাঙ্গসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. এনামুল হক জানান, শিশু নয়ন মণি হত্যাকাÐের ঘটনায় জড়িত থাকার দায়ে তার মা বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা রুজু করে। মামলার এজাহারনামীয় আসামী ডুলাহাজারা ইউনিয়নের পাগলির বিলস্থ ভিলেজার পাড়ার মৃত মো. হোছনের ছেলে কুতুব উদ্দিন কাইছারকে (২০) গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
চকরিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. কামরুল আজম বলেন, ‘শিশু নয়ন মণি হত্যাকাÐের ঘটনার আদ্যোপান্ত জানতে গ্রেপ্তারকৃত আসামীকে পুলিশ হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে রিমান্ড আবেদন করতে তদন্তকারী কর্মকর্তাকে বলা হয়েছে। অন্য আসামীকে গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

নিবন্ধনের জন্য আবেদিত
Desing & Developed BY MONTAKIM