বাংলাদেশ, , রোববার, ২৭ নভেম্বর ২০২২

সৈকতে ভেসে আসা মাছ কুড়িয়ে নিলো পর্যটক ও স্থানীয়রা

আলোকিত কক্সবাজার ।।  সংবাদটি প্রকাশিত হয়ঃ ২০২২-১১-১৭ ১৪:২৬:১২  

জেলিফিসের পর হঠাৎ করে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের লাবনি পয়েন্ট, শৈবাল ও ডায়েবিটক পয়েন্টেসহ প্রায় দুই কিলোমিটার সৈকত জুড়ে মাছে সয়লাব হয়ে পড়েছে। বৃহস্পতিবার (১৭ নভেম্বর) সকাল দশটার দিকে ছোট প্রজাতির পোকা মাছ, ইলিশসহসহ বিভিন্ন প্রজাতির এসব মাছ এসেছে বলে জানিয়েছেন পর্যটক ও স্থানীয়রা। মাছের খবর পেয়ে লোকজন সৈকতে ভীড় করেন। একই সাথে পর্যটক, বীচ কর্মী ও স্থানীয়রা মাছ কুড়িয়ে নেন।
লাবনী পয়েন্টে গিয়ে দেখা গেছে-পর্যটক আর স্থানীয় কুড়িয়ে নিচ্ছে পোয়া, ইলিশসহ নানা প্রজাতির মাছ। টানাজাল নামক মাছ ধরার নৌকায় অতিরিক্ত মাছ ধরা পড়ার পর জাল ও মাছ ফেলে দেয় জেলেরা।
এফবি আরিফের’ মাঝি আবুল কাসেম বলেন, নয়টার দিকে লাবনী ও শৈবাল পয়েন্টের মাঝামাঝি জায়গায় আমরা অনেকে জাল ফেলেছি। কিন্তু আমাদের নৌকা ছোট তাই অতিরিক্ত মাছ ধরা পড়ায় অনেক জেলে মাছ ও জাল ফেলে দিয়েছে।
সৈকতের জেড স্কি চালক দেলোয়ার বলেন, দশটার দিকে মাছগুলো সৈকতে চলে আসে আমরা কুরিয়ে নিয়েছি।
মোঃ রাফি নামে এক পর্যটক বলেন, দুইটি মাছ ধরার নৌকার জালে অতিরিক্ত মাছ আটকে গেলে তারা জাল ছেড়ে দেয়। ফলে জালসহ মাছগুলো সৈকতে আলে আস।
জাফর আলম নামে স্থানীয় এক যুবক বলেন, আমি প্রায় চার মনে মাছ কুড়িয়েছি। দুই মন বিক্রি করেছি। আর দুই মনের মতো জমা রেখেছি।
ট্যুরিস্ট পুলিশ কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক শামীম হোসেন বলেন, যখন সৈকতে মাছ পড়ে আছে। আমিও নিয়েছি এক বস্তা। অনেকে মাছ কুড়িয়ে নিয়েছে। অতিরিক্ত মাছ পড়ায় জাল তুলতেও পারে জেলেরা। তাই হয়তো ছেড়ে দিয়েছে।
সৈকতের লাইফগার্ড ইনচার্জ ওসমান গণি বলেন, সকাল সৈকতে মাছ ভেসে আসতে দেখা যায়। তারপর পর্যটক ও স্থানীয়রা এসব মাছ কুড়িয়ে নিয়ে যায়। ধারণা করা হচ্ছে জেলেদের জালে অতিরিক্ত মাছ ধরা পড়েছে। তাই অতিরিক্ত মাছগুলো নিতে না পারে সাগরে ফেলে দিচ্ছে জেলেরা।

পূর্ববর্তী - পরবর্তী সংবাদ
                                       
ফেইসবুকে আমরা