বাংলাদেশ, , রোববার, ২৭ নভেম্বর ২০২২

রংপুরে বাবার হাতে শিশু খুন; মৃত্যুদন্ড প্রাপ্ত পলাতক বাবা গ্রেফতার

আলোকিত কক্সবাজার ।।  সংবাদটি প্রকাশিত হয়ঃ ২০২২-১০-১৪ ১৫:৫০:৫৯  

২০১৬ সালে নানার বাড়ি থেকে নিয়ে গিয়ে নিজের ২২ মাসের শিশু সন্তানকে খুন করে পাষন্ড বাবা মোঃ আলাল প্রকাশ দুদু মিয়া। এ ঘটনায় দায়ের করা মামলায় তার মৃত্যুদন্ড হয়। পালাতক থাকা অবস্থায় ১৩ অক্টোবর (বৃহস্পতিবার) রাতে চট্টগ্রামের খুলশী এলাকা থকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

ধৃত আলাল রংপুরের কোতয়ালী থানার কিশামত এলাকার মোঃ মোসলেম উদ্দিন প্রকাশ প্লান্টুর ছেলে।

র‌্যাব-৭ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) মো: নূরুল আবছার তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ২০১৬ সালে নিজ সন্তানকে হত্যা করার পর দায়ের করা মামলায় তাকে গ্রেফতার করা হয়। সে সময় আদালতে তিনি স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। বিজ্ঞ আদালত উক্ত মামলায় তাকে মৃত্যুদন্ড দেন। পালাতক থাকার কারণে তার রায় কার্যকরা হয়নি। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাকে চট্টগ্রাম মহানগরীর খুলশী থানাধীন পশ্চিম খুলশী এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়।

জানা যায়, চট্টগ্রামে একটি গার্মেন্টস এ চাকুরী করতেন আলাল ও তার স্ত্রী। তাদের দাম্পত্য জীবনে ২২ মাসের ফুটফুটে এক কন্যা সন্তান ছিল। কিন্তু কন্যা শিশুটি তার নানীর কাছে রংপুরে থাকত। ২০১৬ সালে পবিত্র ঈদ-উল-আযহায় আলাল তার স্ত্রীকে নিয়ে শ্বশুর বাড়ি রংপুরে বেড়াতে যায়। ২০১৬ সালের ১৫ সেপ্টেম¦র দুপুরে আলাল তার মেয়েকে নিয়ে নিজ বাড়িতে যাওয়ার কথা বলে বেরিয়ে যায। তাকে একাধিকবার ফোন করেও কোন সুদোত্তর পাওয়া যায়নি। আলালের অসংলগ্ন কথা শুনে নিহত শিশুর নানী এবং মামা আলালের বাড়িতে গিয়ে তার মা, বাবা, ভাই এবং ভাবীকে জিজ্ঞেস করেন। কিন্তু কেউ আলালের সম্পর্কে খবর দিতে পারেনি। ১৭ বিকাল তিনটার সময় রংপুর কোতয়ালী থানাধীন তাজহাট এলাকায় একটি কলা বাগানে ছোট-ছোট বাচ্চারা খেলাধূলা করার সময় একটি শিশু কন্যার লাশ দেখে চিৎকার করলে আশে-পাশের লোকজন এগিয়ে আসে। খবর পেয়ে ভিকটিম শিশুটির মা, নানী এবং আত্মীয় স্বজন এসে লাশটি তাদের ২২ মাস বয়সী শিশু কন্যা বলে সনাক্ত করে। এ ঘটনায় ভিকটিম শিশুটির নানী বাদী হয়ে রংপুর জেলার কোতয়ালী থানায় মোঃ আলাল এবং আরও ৫জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। যার মামলা থানা মামলা নং -৫৩/১৬, জিআর-৭৮৮/১৬।

মামলায় আলালকে গ্রেফতার করে রিমান্ডে নিয়ে গেলে বিজ্ঞ আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেন। জামিন নিয়ে আলাল আত্মগোপনে চলে যান। তার অনুপস্থিতিতে বিজ্ঞ আদালত বিচার কার্য শেষ করেন। ঘটনার সত্যতা পাওয়ায় বিজ্ঞ আদালত আসামী মোঃ আলালকে মৃত্যুদন্ডে দন্ডিত করে।


পূর্ববর্তী - পরবর্তী সংবাদ
                                       
ফেইসবুকে আমরা