বাংলাদেশ, , শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২

ফাঁসাতে গিয়ে ফেঁসে গেলেন যুবক

আলোকিত কক্সবাজার ।।  সংবাদটি প্রকাশিত হয়ঃ ২০২২-০৯-০৮ ১৬:৪৬:২০  

ওয়াহিদ রুবেল, কক্সবাজার, ৮ সেপ্টম্বর:

প্রতিপক্ষকে অস্ত্র ও ইয়াবা দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে র‌্যাবের হাতে আটক হলেন তথ্যপ্রদানকারী ৬ মামলার পালাতক আসামী আবুল হোসেন। জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে এক পক্ষ থেকে সুবিধা নিয়ে অপরপক্ষকে ফাঁসাতে ইয়াবা ও অস্ত্র সরবরাহ করে র‌্যাবকে খবর দিয়েছিলেন তিনি। অস্ত্র ও ইয়াবা উদ্ধারের পর সন্দেহ হওয়ায় তাকে আটক করলে বিষয়টি স্বীকার করেন আটক যুবক। ৭ সেপ্টম্বর (বুধবার) চট্টগ্রামের চান্দগাঁও পশ্চিম মুহরা দেওয়ান মহসীন এলাকার জনৈক নাসরিন আক্তারের বসতবাড়ি থেকে অস্ত্র ও ইয়াবা উদ্ধারের পর তাকে আটক করা হয়।

আটক আবুল হোসেন চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ার আমিন কোড়ালপাড়া এলাকার মৃত অব্দুলঃ হাকিমের ছেলে।

র‌্যাব-৭ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) মো: নুরুল আবছার তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ৭ সেপ্টেম্বর দুপুর দুইটার দিকে আনুমানিক দুইটার দিকে জনৈক মোঃ আবুল হোসেন র‌্যাবকে খবর দেয় যে, চট্টগ্রামের চান্দগাঁও থানার পশ্চিম মুহরা দেওয়ান মহসীন সড়কস্থ জনৈক ইসুফ এর স্ত্রী নাসরিন আক্তারের বসত ঘরে মাদকদ্রব্য ইয়াবা ও অস্ত্র মজুদ রয়েছে। উক্ত তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাবের এর একটি দল তথ্য প্রধানকারী ব্যক্তিকে সাথে নিয়ে নাসরিন আক্তারের বাড়িতে অভিযান পরিচালনা করা হয়।

অভিযানে বসতঘরে কক্ষে তল্লাশি চালিয়ে একটি শপিং ব্যাগে থেকে ১টি ওয়ান শুটারগান, ১টি পাইপগান, ১ রাউন্ড কার্তুজ এবং একটি ওয়ারড্রফ থেকে ২২৫০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। বসত ঘরের মালিক নাসরিন আক্তার ইয়াবা ও অস্ত্র সম্পর্কে কিছুই জানে না মর্মে র‌্যাবকে জানায়। এটি তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র বলে দাবি করেন তিনি। এ অবস্থায় তথ্যদাতা আবুল হোসনের দেয়া তথ্যটি রহস্যজনক বলে সন্দেহের সৃষ্টি হলে তাকে (আবুল হোসেন) জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। একপর্যায়ে সে স্বীকার করে যে, বর্ণিত বসতঘরের মালিক নাসরিন আক্তার ও তার ছেলে মোঃ সোহান (১৮) এর সাথে স্বামী ইউসুফ ও তার সতিন কোহিনুর আক্তারের মাঝে জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছে। উক্ত বিরোধের জের ধরে মা-ছেলেকে ফাঁসাতে অবৈধ অস্ত্র-গুলি ও ইয়াবা সরবরাহ করা হয়। ধৃত আবুল হোসেন আরো জানায় যে, মা-ছেলেকে ফাঁসাতে ৩ লাখ টাকার চুক্তি হয়। চুক্তি মোতাবেক ৬ সেপ্টম্বর নাসরিন এর ঘরে ইয়াবা ও অস্ত্রটি রাখা হয়।

অভিযানে প্রকৃত ঘটনা ফাঁস হয়ে যাচ্ছে বুঝতে পেরে মূল পরিকল্পনাকারী নাসরিন আক্তারের স্বামী ইউসুফ ও তার ২য় স্ত্রী কোহিনুর আক্তার পালিয়ে যায়।

এদিকে আটক আসামী মোঃ আবুল হোসেন এর বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম মহানগরীর চান্দগাঁও থানায় চাঁদাবাজি, হত্যাচেষ্টা ও চুরিসহ ৬টি মামলা রয়েছে বলে জানা যায়। পরে তাকে আইনানুগ ব্যবস্থা নিয়ে চান্দগাঁও থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানান র‌্যাবের এ কর্মকর্তা।


পূর্ববর্তী - পরবর্তী সংবাদ
                                       
ফেইসবুকে আমরা