বাংলাদেশ, , শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২

চকরিয়ায় ৪০ হাজার পরিবারে ভিজিএফ’র চাউল বিতরণ

আলোকিত কক্সবাজার ।।  সংবাদটি প্রকাশিত হয়ঃ ২০১৫-০৯-২০ ১০:৫৯:৫২  

চকরিয়া প্রতিনিধি
চকরিয়ায় ঈদুল আযহা উপলক্ষে বিশেষ বরাদ্ধের আওতায় বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থসহ ৪০ হাজার দরিদ্র ও অসহায় পরিবারের মাঝে ভিজিএফ কর্মসুচির চাউল বিতরণ করা হয়েছে। শনিবার সকালে চকরিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ জাফর আলম প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়ে উপজেলার একাধিক ইউনিয়ন পরিষদে চাউল বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের একান্ত প্রচেষ্টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে দুর্যোগ ব্যস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রানালয় ঈদুল আযহা উপলক্ষে উপজেলার আঠার ইউনিয়ন ও পৌরসভার প্রায় ৪০ হাজার পরিবারের জন্য বিশেষ বরাদ্ধে ভিজিএফ কর্মসুচির কার্ড দেন।  কার্ডের মাধ্যমে প্রত্যেক পরিবার মাসে ২০কেজি হিসেবে দুই মাসে ৪০কেজি করে চাউল পাবেন। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শনিবার আনুষ্টানিকভাবে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের দরিদ্র পরিবারের মাঝে চাউল বিতরণ উদ্বোধন করেন।
এদিকে ভিজিএফ চাউল বিতরণ উপলক্ষে উপজেলার ঢেমুশিয়া ইউনিয়ন পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্টিত হয়েছে এক সুধী সমাবেশে। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপজেলা চেয়ারম্যান জাফর আলম বলেন, ১৯৯১সালে প্রলংকারী ঘুর্ণিঝড়ে কক্সবাজারের হাজার হাজার মানুষ মারা যায়। তৎকালীন সময়ে বিএনপি সরকার ক্ষমতায় থাকাকালে এক কেজি চালও দূর্গত মানুষের হাতে তুলে দিতে পারেনি। কিন্তু বর্তমান সময়ে কক্সবাজারের বন্যা দূর্গত লোকজনের জন্য আওয়ামী সরকার পর্যাপ্ত পরিমাণ ত্রানের চাউল পৌঁছে দিয়েছেন। বন্যাদুর্গত গরীব মানুষের জন্য শেখ হাসিনা সরকারের ত্রাণ ভান্ডার খুলে দেওয়া হয়েছে। উপজেলা চেয়ারম্যান বলেন, চকরিয়ার মানুষ বিশেষ ভিজিএফ’কে ত্রাণ হিসেবে নেয়নি, তারা ত্রাণ উৎসব হিসেবেই বিবেচিত করছে। কারন কক্সবাজার জেলার জন্য সরকার বরাদ্ধ দিয়েছে ৭০হাজার মেট্রিক টন চাউল, সেখানে  শুধুমাত্র চকরিয়া উপজেলার জন্য বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছে ৪০হাজার মেট্রিক টন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আন্তরিকতা আছে বলেই চকরিয়াবাসি এত ত্রাণ পেয়েছে। সুধী সমাবেশে তিনি আরো বলেন, আগামী দুই মাসের মধ্যে চকরিয়া উপজেলার বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ৭ হাজার গৃহহারা পরিবারকে বসতবাড়ি পূণ:নির্মাণের জন্য ঢেউটিনসহ পযার্প্ত সহায়তা দেবে সরকার। এছাড়া ডিসেম্বেরের মধ্যে উপজেলার সমস্ত রাস্তা-ঘাট, ব্রীজ-কালভার্ট, বেড়িবাধ পূণ:নির্মাণ ও সংস্কার করে কাজ সম্পন্ন করা হবে। ডিসেম্বরে চকরিয়াবাসি বিজয় দিবসের উৎসব পালন পাশাপাশি উন্নয়ন উৎসব পালন করবে। প্রধানমন্ত্রী চকরিয়া উপজেলাকে আলাদাভাবে নিয়ে সকল প্রকার উন্নয়ন কাজ করতে যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তা বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্ট বিভাগকে বিশেষভাবে নির্দেশনা প্রদান করেছেন।
সুধী সমাবেশের আগে উপজেলা চেয়ারম্যান জাফর আলম শনিবার সকালে উপজেলার ডুলাহাজারা, ফাসিয়াখালী, বমুবিলছড়ি, লক্ষ্যারচর, কৈয়ারবিল, বদরখালী, পশ্চিম বড়ভেওলা, ঢেমুশিয়া, সাহারবিল ইউনিয়নে ভিজিএফ বিতরণ করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন ফাসিয়াখালী ইউপি চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামীলীগের সি:সহসভাপতি সরওয়ার আলম, সহসভাপতি এম আর চৌধুরী, মোক্তার আহমদ চৌধুরী, যুগ্ম সম্পাদক আলমগীর চৌধুরী, সাহারবিল ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল হাকিম, পশ্চিম বড়ভেওলা ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ সাহাব উদ্দিন, লক্ষ্যারচর ইউপি চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মানিক, কৈয়ারবিল ইউপি চেয়ারম্যান শরীফ উদ্দিন চৌধুরী, বদরখালী ইউপি চেয়ারম্যান নুরে হোছাইন আরিফ, বমুবিলছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন, ঢেমুশিয়া ইউপি চেয়ারম্যান রুস্তম আলী ও উপজেলার চেয়ারম্যানের সহকারি সচিব হাসানুল ইসলাম আদর ও জালাল উদ্দিন মানিক, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সহ অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের সকল স্তরের নেতাকর্মী।


পূর্ববর্তী - পরবর্তী সংবাদ
                                       
ফেইসবুকে আমরা