সোমবার, ০৮ অগাস্ট ২০২২, ০৪:০২ পূর্বাহ্ন

কোন ধরনের পানীয় খালি পেটে উপকারী

ডেস্ক নিউজ:
  • প্রকাশিত সময় : বৃহস্পতিবার, ২৮ জুলাই, ২০২২
  • ১৩ বার পড়া হয়েছে

প্রতিক ছবি।

 

সকালে খালি পেটে কোন ধরনের পানীয় পান করা আসলেই উপকারী—তা নিয়ে অনেকেই দ্বিধায় থাকেন। ঘুম থেকে উঠেই পানীয় পান করলে শরীরের দূষিত পদার্থ বের হয়ে যায়। শরীরকে সতেজ রাখতে বেছে নিতে পারেন নিম্নলিখিত যেকোনো একটি পানীয়।

লেবু-মধু-পানি

হার্ট ভালো রাখতে, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে, ত্বক ভালো রাখতে, হজমপ্রক্রিয়া সচল রাখতে, ঠাণ্ডা-কাশির সমস্যা সমাধানসহ নানা ধরনের উপকার পেতে কুসুম গরম পানিতে মধু ও লেবুর রস মিশিয়ে পান করতে পারেন।

কিন্তু দীর্ঘ সময় পান করলে এসিডিটি, দাঁতের সমস্যা বৃদ্ধি, পেট জ্বালাপোড়া, অনিয়ন্ত্রিত সুগারসহ বেশ কিছু সমস্যা হতে পারে।
ইসবগুল-পানি

যাদের কোষ্ঠকাঠিন্য আছে, তাদের কাছে দীর্ঘ সময় ধরে পরিচিত আয়ুর্বেদিক পানীয় এটি, যা ডিটক্সিফিকেশনেও সাহায্য করে। এ ছাড়া হজমপ্রক্রিয়া ভালো রাখতে, অতিরিক্ত কোলেস্টেরল বা চর্বির পরিমাণ কমাতে ভালো কাজ করে। তবে এই পানীয় মাত্রাতিরিক্ত গ্রহণ করা যাবে না।

চিয়া সিড-পানি

চিয়া সিড ভালো ফ্যাটের উৎস। এতে অ্যান্টি-অক্সিডেন্টও থাকে। রক্তে চিনির মাত্রা ও প্রেসার নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। পানিতে মিশিয়ে পান করতে হয়, দীর্ঘ সময় ভিজিয়ে রাখার প্রয়োজন নেই। তবে অতিরিক্ত সেবনের ফলে কারো কারো অ্যালার্জি, ডায়াবেটিস হঠাৎ কমে যাওয়ার সমস্যা দেখা দিতে পারে।

জিরা-পানি

অনেকেই জিরা-পানি ফুটিয়ে সকালে খালি পেটে পান করেন। এটি হজমপ্রক্রিয়া ভালো রাখতে বেশ সাহায্য করে। যেকোনো ধরনের প্রদাহজনিত সমস্যা কমাতে কার্যকর। গর্ভকালে মর্নিং সিকনেস কমাতেও ভালো কাজ করে। তবে দীর্ঘ সময় পান করলে বিভিন্ন শারীরিক জটিলতা তৈরি হতে পারে।

মেথি-পানি

ক্যান্সার প্রতিরোধে, টেস্টোস্টেরন লেভেল নিয়ন্ত্রণে রাখতে, ত্বকের সৌন্দর্য ধরে রাখতে, হজমপ্রক্রিয়া ভালো রাখতে, মলাশয় পরিষ্কার রাখতে সাহায্য করে থাকে মেথি-পানি। তবে গর্ভকালে পান করলে ঝুঁকি হতে পারে। একটানা দীর্ঘ সময় পানে অ্যালার্জি সমস্যা, বদহজম, কিডনির জটিলতা তৈরি হতে পারে।

দারচিনি-পানি

অনেকে দারচিনি পানিতে ফুটিয়ে বা দারচিনি গুঁড়া কুসুম গরম পানিতে মিশিয়ে পান করেন। এই পানীয় ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণে রাখতে, হার্ট ভালো রাখতে, হজমপ্রক্রিয়া সঠিক রাখতে, কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে কার্যকর ভূমিকা পালন করে। তবে এটি পানে অনেকের অ্যালার্জি হতে পারে, দুগ্ধদানকারীদের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ, কিছু ওষুধের সঙ্গে প্রতিক্রিয়া করতে পারে।

পরামর্শ দিয়েছেন

নাহিদা আহমেদ

পুষ্টিবিদ, গুলশান ডায়াবেটিক কেয়ার, ঢাকা

সূত্র-কালেরকণ্ঠ

অনলাইন বিজ্ঞাপন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ বিভাগের আরো সংবাদ
নিবন্ধনের জন্য আবেদিত
Design and Develop By MONTAKIM
themesba-lates1749691102