মঙ্গলবার, ২৩ Jul ২০২৪, ১০:৫৭ অপরাহ্ন

সৈকত পরিষ্কারে শিক্ষার্থীরা

সৈকত পরিষ্কারে শিক্ষার্থীরা

অনলাইন বিজ্ঞাপন

নিজস্ব প্রতিবেদক॥
bg_Event_pic__5__513701381স্কুলের ইউনিফর্ম পরা ছেলেমেয়েরা সৈকতে হেঁটে হেঁটে সমুদ্রতীর এবং জলপথ থেকে ময়লা-আবর্জনা পরিষ্কার করছেন।  পাশাপাশি যেসব কারণে পরিবেশ দূষণ ঘটে, দর্শনার্থীদের সে সবের ব্যাপারে সচেতনতা বৃদ্ধির চেষ্টাও করছেন তারা।
শনিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) সকালে পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজারে দেখা গেল এ অনুপ্রেরণামূলক দৃশ্য।   বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশও প্রতিবছর আন্তর্জাতিক সৈকত পরিচ্ছন্নতা দিবস উদযাপন করে। এরই অংশ হিসেবে শনিবার শিক্ষার্থীরা অংশ নেন সমুদ্র সৈকত পরিচ্ছন্নতার কাজে। এ নিয়ে দশমবারের মতো বাংলাদেশে দিনটি উদযাপিত হচ্ছে। আন্তর্জাতিকভাবে এ দিনটি উদযাপন শুরু হয় ৩০ বছর আগে।
‘আগামীর পথে একসাথে’ স্লোগান নিয়ে দিনের কার্যক্রম শুরু হয় শনিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) সকাল ৯টায় হোটেল শৈবাল থেকে। এরপর তা লাবণী পয়েন্টে গিয়ে শেষ হয়। এতে বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষও স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করেন।
আনুষ্ঠানিকতা শেষে শিক্ষার্থীরা দলে ভাগ হয়ে নেমে পড়েন সৈকত পরিচ্ছন্নতার অভিযানে। এ আয়োজনের সংগঠক ‘কেওক্রাডং বাংলাদেশ’। তাদের এ উদ্যোগে পৃষ্ঠপোষকতা করেছে মোবাইল টেলিকম অপারেটর বাংলালিংক।
সৈকতে দাঁড়িয়ে বাংলালিংকের চট্টগাম-সিলেটের রিজিওনাল ডিরেক্টর সৌমেন মিত্র বাংলানিউজকে বলেন, কয়েক বছর ধরে সমুদ্র সংরক্ষণ এবং আন্তর্জাতিক সৈকত পরিচ্ছন্নতা দিবস উপলক্ষে বাংলালিংক কাজ করছে। জনসাধারণকে বছর জুড়ে সমুদ্র সৈকত পরিচ্ছন্ন রাখতে উদ্বুদ্ধ করাই আমাদের লক্ষ্য।তিনি বলেন, আমরা সফল। আশা করি, আগামীতে এই ধারা আরো বেশি বেগবান হবে।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

নিবন্ধনের জন্য আবেদিত
Desing & Developed BY MONTAKIM