শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ০৭:৩০ অপরাহ্ন

প্রতিমা নিরঞ্জনে আপনজন হারানোর বেদনা

প্রতিমা নিরঞ্জনে আপনজন হারানোর বেদনা

অনলাইন বিজ্ঞাপন

মুকুল কান্তি দাশ,চকরিয়া:

মহালয়ায় প্রস্ততি, ৬ষ্ঠী দিয়ে শুরু হয়ে দশমীতে শেষ । তবুও সাঙ্গ হয়নি শারদীয়া দুর্গোৎসব । পুরো ইতি ঘটেছে বিসর্জনে ।আনন্দ উদ্দিপনা যেন  সুদৃঢ় হয়ে জটফাকিয়েছিলো প্রতিমা নিরঞ্জনে উৎসর্গ করতে ।তাইতো বাঁধভাঙ্গা উল্লাস, গান ও ধর্মীয় কোরাসের তালে নেচে-গেয়ে টইটুম্বুর অবস্থা মাতামুহুরীর চর। লোকে-লোকারণ্য। শুধুমাত্র সনাতন সম্প্রদায় নয় ।

মুসলিম, বৌদ্ধ,খৃষ্ট্রান, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীসহ বিভিন্ন ধর্মাবলম্বী নারী-পুরুষরাও ভাগাভাগি করে আনন্দ। এতে কক্সবাজারের চকরিয়া জুড়ে বিকশিত হয় অসম্প্রদায়িক চেতনা আর প্রতিমা নিরঞ্জনের পর আপন নিবাস ফিরতি লাখো মানুষের চেহারায় বিষন্নতা । যেন নেমে এসেছে বিষাদের ছায়া। এভাবেই শারদীয়া দুর্গোৎসব পালিত হয়েছে চকরিয়ায় ।
মাতামুহুরী ব্রীজ পয়েন্টে নদীর চরে আয়োজিত বিসর্জন অনুষ্টানে অংশ নেয়া প্রবাসী রতন দাশ বলেন, দীর্ঘদিন দুবাই ছিলাম । সম্প্রতি দেশে এসেছি। এরই মধ্যে দুর্গোৎসব পালন করে প্রথমবার মাতামুহুরীর চরে বিসর্জন অনুষ্টানে সবার সাথে যোগ দিতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে করছি । এখানে হাজার হাজার মানুষ উপস্থিত হয়ে বিসর্জন অনুষ্টানকে যেভাবে মহামিলন মেলায় পরিণত করেছে তা দেখে আমার মন জুড়িয়ে গেছে ।

কলেজ ছাত্রী জিতু দাশ বলেন, পরিবার সদস্য ও বান্ধবীদের নিয়ে মাতামুহুরীর চরে এসেছি । আনন্দ ভাগাভাগি করতে । কয়েক’শ জনকে রংয়ে রাঙ্গান্বিত করেছি । এদিনটি ভুলবার নয় । স্মৃতিময় হয়ে থাকবে । আগামী বছর ঠিক এই দিনটি আরো আনন্দময় হয়ে উঠবে মনে করছি ।
প্রতিমা বিসর্জন পূর্ব অনুষ্টানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে চকরিয়া-পেকুয়া আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মো.ইলিয়াছ বলেন, বিসর্জন অনুষ্টান শুধু একটি ধর্মের লোকদের মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই । তার প্রমাণ মাতামুহুরীর চরে উপস্থিত বিভিন্ন ধর্মের হাজার হাজার নারী-পুরুষের আগমন । এই উৎসব আগামীতে আরো ব্যাপকতা পেয়ে মহামিলন মেলায় পরিণত হবে ।

প্রতিমা বিসর্জন কমিটির আহবায়ক ডাক্তার তেজেন্দ্রে লাল সুশীলের সভাপতিত্বে ও চকরিয়া জন্মাষ্টামী উদযাপন পরিষদের সভাপতি সাংবাদিক মুকুল কান্তি দাশের স্বাগত বক্তব্য এবং নারায়ণ দাশের সঞ্চালনায় আয়োজিত অনুষ্টানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন চকরিয়া বিআরডিবি’র চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সেলিমউল্লাহ, উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি আলহাজ্ব আনোয়ারুল এহেছান বুলু, বিসর্জন কমিটির সদস্য সচিব ডাক্তার তেজেন্দ্রে লাল দে, অর্থ সচিব রতন বরণ দাশ, ধনরঞ্জন দাশ, চকরিয়া পৌরসভা আওয়ামীলীগের সভাপতি জাহেদুল ইসলাম লিটু, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ফজলুল করিম সাঈদী, পৌর আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ওয়ালিদ মিল্টন, আমিনুর রশিদ দুলাল, পৌর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শওকত ওসমান, সাংবাদিক মিজবাউল হক, উপজেলা সেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি শওকত হোসেন, নিত্যানন্দ গীতা সংঘের সভাপতি শ্রীদুল রঞ্জন দাশ । এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, চকরিয়া প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি এমআর মাহামুদ, বর্তমান সভাপতি এম.জাহেদ চৌধুরী, প্রবীন সাংবাদিক রফিক আহমদ, ,চকরিয়া পৌরসভার কাউন্সিলর লক্ষণ কান্তি দাশ, প্রদীপ কান্তি দাশ, ক্রীড়া সংগঠক এসএম আলমগীর হোছাইন, চকরিয়া প্রেসক্লাবের অর্থ সম্পাদক ছোটন কান্তি নাথ, প্রেসক্লাবের সাংস্কৃতিক সম্পাদক বেলাল উদ্দিন, সাংবাদিক মনসুর আলম, আলী হোসেন, সুলাল সুশীল, জুয়েলারী সমিতির সাধারণ সম্পাদক গোপাল কান্তি দাশ, নেপাল দে, রঞ্জন দাশ মনু, নন্দরাম দাশ, মাষ্টার টিুটু সুশীল, মাষ্টার সন্তোষ দাশ, পংকজ দাশ, রাজু চক্রবর্তীপ্রমুখ।

অনুষ্টানে উপজেলার ১৩টি মন্ডপ থেকে প্রতিমা আনা হয় । বিসর্জন পূর্বে চট্টলার বিশিষ্ট সংগীত শিল্পী পলি শারমিন ও সনজিত আচার্য্য, অতিথি শিল্পী জাহেদুল ইসলাম লিটুর বেলা ২টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত গাওয়া গানের তালে পুজারীরা নাচেন এবং একে অপরকে রং মাখিয়ে আনন্দ উল্লাস প্রকাশ করেন । সন্ধ্যায় মন্ত্র পাঠের মাধ্যমে প্রতিমা নিরঞ্জন দেয়া হয় মাতামুহুরী নদীতে ।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

নিবন্ধনের জন্য আবেদিত
Desing & Developed BY MONTAKIM