সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ০৩:১৯ অপরাহ্ন

টেকনাফে মাজার নির্মাণে জনতার বাধা-পুলিশ মোতায়েন

টেকনাফে মাজার নির্মাণে জনতার বাধা-পুলিশ মোতায়েন

অনলাইন বিজ্ঞাপন

নুরুল হোসাইন , টেকনাফ 

টেকনাফ উপজেলার সাবরাং ইউনিয়নের মুন্ডার ডেইল এলাকায় সদ্য পরলোকগত এবং বিতর্কিত সাধু জিহাদী বাবার মাজার নির্মাণকে কেন্দ্র করে এলাকায় টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন করা হয়।
জানা গেছে, চট্রগ্রামের বাঁশখালির মাও: বদিউল আলম জিহাদী নামে এক ফকিরের কবরকে মাজার নির্মাণ করার উদ্দেশ্যে একটি স্বার্থান্বেষী মহল (মাইজভান্ডারী তরিকত এর অনুসারী) গোটি কয়েক লোক মরিয়া হয়ে উঠে। এতে এলাকাবাসী বাধা প্রদান করে।

এলাকার কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সাবরাং ইউনিয়নের চান্দলীপাড়া ও মুন্ডার ডেইল ইবতেদায়ী মাদ্রাসা, কবরস্থান সংলগ্ন খলিল সওদাগরের বসতভিটায় এলাকাবাসী এবং প্রশাসনের অনুমতির তোয়াক্কা না করেই এলাকার কিছু স্বার্থান্বেষী লোক সদ্য পরলোকগত এবং বিতর্কিত সাধু জিহাদী বাবার মাজার নির্মাণের কাজ শুরু করেছিল। তিনি গত কয়েক সাপ্তাহ আগে মৃত্যুবরণ করে । মৃত মাও: বদিউল আলম জিহাদীর ছেলে সায়ের মো. রফিকুল আলম জিহাদী জানান, তার বাবা দীর্ঘকাল তরিকত ও সুন্নীয়ত প্রচারে টেকনাফে আসে। স্থানীয় ভক্তদের অনুরোধে খলিল সওদাগরের দানকৃত জমিতে মাজার স্থাপন করা হচ্ছে। সারাদেশে মাজার রয়েছে এখানে করলে সমস্যা কোথায়।

মাজার নির্মানের খবর পেয়ে স্থানীয় আলেম সমাজ মুন্ডার ডেইল প্রাইমারী স্কুল মাঠে গতকাল ১৯ অক্টোবর বিকালে এক প্রতিবাদ সভা করেছে। এতে বক্তব্য রাখেন, ওলামা পরিষদ টেকনাফ উপজেলা শাখার সহ-সভাপতি টেকনাফ পৌরসভার প্যানেল মেয়র ও  স্থানীয় সাংসদের ছোট ভাই মাও: মুজিবুর রহমান, সাবরাং বড় মাদ্রাসার মুহতামিম মাও: নুর আহমদ, সাবরাং ওলামা পরিষদের সভাপতি মাও: হোছাইন আহমদ, কাটাবনিয়া এমদাদুল উলুম মাদ্রাসার মুহতামিম মাও: মনির আহমদ, সাবরাং মাদ্রাসার শিক্ষক মাও: মো. ইসহাক, ইউপি সদস্য মো. ইউনুছ, সাবরাং মাদ্রাসার সহকারী পরিচালক মাও: আমির হোছাইন, মাও: তৈয়ুব, মাও: সব্বির আহমদ, মাও: নুর হোছাইন ও আমান উল্লাহ প্রমূখ। প্রতিবাদ সভায় বক্তারা বলেন, মাজার নির্মাণ করা ও সিজদা করা ইসলাম কখনো সমর্থন করে না। যে কোন মূল্য নির্মাণকারীদের প্রতিহত করা হবে।

টেকনাফ মডেল থানার ওসি তদন্ত কবির হোসেন জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।
উল্লেখ্য, নির্মিতব্য মাজার ও আশপাশের এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে এবং এলাকাবাসী দৌরাÍ্যমূলক সহিংস ঘটনায় আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

নিবন্ধনের জন্য আবেদিত
Desing & Developed BY MONTAKIM