বাংলাদেশ, , শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২

চকরিয়ায় কাটা রাইফেলসহ পুলিশের সোর্স গ্রেপ্তার

আলোকিত কক্সবাজার ।।  সংবাদটি প্রকাশিত হয়ঃ ২০১৫-১০-১০ ২৩:৩৯:০৯  

চকরিয়া প্রতিনিধি॥
চকরিয়ায় স্বামীসহ দ্বিতীয় স্ত্রী ও তাদের পরিবারের সন্তানদের ফাঁসাতে গিয়ে অস্ত্রসহ আটক হয়েছেন পুলিশের এক সোর্স। তবে এ সময় পুলিশের উপস্থিতি আঁচ করতে পেরে আরো এক সোর্স পুলিশের জাল থেকে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। গত শুক্রবার দিবাগত রাত সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের সাত নম্বর ওয়ার্ডের ঝনঝনি ব্রিজের কাছের প্রবাসী নূর মোহাম্মদের ভাড়া বাসায় এ ঘটনা ঘটে।
পুলিশ ও এলাকাবাসী, আট মাস আগে মহেশখালীর মাতারবাড়ি এলাকার বাসিন্দা ফয়জুল কাদের প্রকাশ হাজি কাদের তার দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে চকরিয়ার ফাঁসিয়াখালীর সাত নম্বর ওয়ার্ডের প্রবাসী নূর মোহাম্মদের ভাড়া বাসায় উঠেন। সেখানে এতদিন ধরে তিনি পরিবার সদস্যদের নিয়ে বসবাস করে আসলেও মহেশখালীর মাতারবাড়ি এলাকার জনৈক জমির উদ্দিন নামের এক ব্যক্তির সঙ্গে চিংড়ি ঘেরের মালিকানা নিয়ে বিরোধ চলছিল। এই সুযোগে হাজী কাদেরের প্রথম স্ত্রীর ইন্ধনে জমির উদ্দিনসহ একটি পক্ষ পুলিশের সোর্সের মাধ্যমে অস্ত্র উদ্ধার অভিযানের নাটকটি সাজায়।
চকরিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. কামরুল আজম জানান, মহেশখালী উপজেলার বড়–য়া পাড়া এলাকার জমির উদ্দিন নামের এক ব্যক্তি গত শুক্রবার রাতে চকরিয়া থানার ওসিকে মুঠোফোনে জানায় চকরিয়ার ফাঁসিয়াখালীর প্রবাসী নূর মোহাম্মদের ভাড়াটিয়া ফয়জুল কাদের প্রকাশ হাজি কাদেরের বাসায় অস্ত্র রয়েছে। এই খবর পাওয়া মাত্রই তার নেতৃত্বে একদল পুলিশ ওই ভাড়া বাসা ঘেরাও করে অস্ত্র উদ্ধার অভিযানে নামে। এ সময় এক সোর্স হঠাৎ চিৎকার দিয়ে উঠে এইতো অস্ত্র পাওয়া গেছে। তাৎক্ষণিক অস্ত্র উদ্ধারের বিষয়টি নিয়ে সন্দেহ দেখা দেয় এবং দুই সোর্সকে আটকের সিদ্ধান্ত নেয় পুলিশ। বিষয়টি আঁচ করতে পেরে এক সোর্স পালিয়ে গেলেও অন্যজন পুলিশের হাতে ধরা পড়ে।
চকরিয়া থানার অপারেশন অফিসার দেবাশীষ সরকার বলেন, ‘ঘটনাটি একেবারে সাজানো নাটক বলে আমরা নিশ্চিত হয়েছি। তাই ওই ভাড়া বাসায় অস্ত্র রয়েছে বলে যে দুই ব্যক্তি পুলিশকে খবর দিয়ে সেই বাসায় নিয়ে যায় তন্মধ্যে চকরিয়া উপজেলার চিরিংগা ইউনিয়নের সওদাগর ঘোনা এলাকার জহির আহমদের ছেলে মোর্শেদ আলমকে (২৭) একটি কাটা রাইফেলসহ আটক করি। অন্যজন পালিয়ে গেলেও তাকেও ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। তার নাম জমির উদ্দিন (২৪)। সে মহেশখালী উপজেলার নলবিলাস্থ বড়–য়াপাড়া এলাকার মো. শফিউল আলমের ছেলে।

চকরিয়া থানার ওসি প্রভাষ চন্দ্র ধর গতরাতে বলেন, ‘অস্ত্র উদ্ধার করতে গেলে সন্দেহ দেখা দিলে আমাদের মধ্যে। কেননা যে ব্যক্তি ভাড়া বাসায় অস্ত্র রয়েছে বলে পুলিশকে খবর দিয়েছিল, সেই ব্যক্তি ওই ভাড়া বাসায় ঢুকে একটি অস্ত্র দেখিয়ে বলে ‘এইতো অস্ত্র পাওয়া গেছে’। তাৎক্ষণিক ভাড়াটিয়া ফয়জুল কাদের প্রকাশ হাজি কাদের জানায় বিষয়টি একেবারে সাজানো এবং পারিবারিক কলহের জের ধরে প্রথম স্ত্রী ইন্ধনে এ ঘটনা সাজানো হয়েছে।’ ওসি জানান, যে দুই ব্যক্তি পুলিশকে খবর দিয়ে বিভ্রান্তিতে ফেলেছে তাদের বিরুদ্ধে থানায় অস্ত্র আইনে মামলা দায়ের করা হচ্ছে।


পূর্ববর্তী - পরবর্তী সংবাদ
                                       
ফেইসবুকে আমরা