মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১২:০৭ পূর্বাহ্ন

লামায় হাতি হত্যা মামলার ওয়ারেন্ট আসামী প্রকাশ্যে ঘুরে ভেড়াচ্ছে

লামায় হাতি হত্যা মামলার ওয়ারেন্ট আসামী প্রকাশ্যে ঘুরে ভেড়াচ্ছে

অনলাইন বিজ্ঞাপন

ডুলাহাজারা প্রতিনিধি॥
বান্দরবানের লামা উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের ডলুর ঝিরি সানমার রাবার বাগানে হাতি হত্যার ওয়ারেন্টের আসামী রাবার বাগানের ম্যনেজার মুফিজুর রহমান ও সুপার ভাইজার মোঃ হানিফ প্রকাশ্যে ঘুরে ভেড়াচ্ছে।
এ হাতি হত্যার সেন্ডিকেটরা গ্রেপ্তার এড়াতে কিছুদিন গাঁঢাকা দিয়ে থাকলেও এখন তারা কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলায় থেকে পুলিশের চোখকে ফাঁকি দিয়ে গোপনে বাগানের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।
উল্লেখ্য যে, লামা ফাঁসিয়াখালী সানমার রাবার বাগানের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা গত কয়েক মাস পূর্বে  তাদের বাগানে ১টি বন্য হাতি মেরে দাঁত উপড়ে নিয়ে হাতিটি রাবার বাগানের মাটিতে পুঁতেফেলে। খবর পেয়ে লামা থানা পুলিশ ও বন বিভাগ রাবার বাগানের মাটিতে পুঁতেরাখা মৃত হাতির কঙ্কাল উদ্ধার করে। এ সময় বাগানের ম্যানেজার, সুপার ভাইজার ও কর্মচারীরা ভয়ে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় হাতি হত্যায় জড়িত থাকার অভিযোগে সানমার রাবার বাগানের কোম্পানি মাশেকুল হক শাহীন, ডাইরেক্টর- শফিক আহামদ, ক্যাশিয়ার- মোঃ নবী হোছেন, ম্যানেজার- মুফিজুর রহমান ও সুপার ভাইজার- মোঃ হানিফ সহ জড়িত ৫ জনকে আসামী করে বন বিভাগের ফাঁসিয়াখালী ইয়াংছা ক্যাম্পের ইনচার্জ মাজহারুল ইসলাম বাদী হয়ে লামা থানায় ১টি মামলা দায়ের করেন।  কিন্তু সানমার কোম্পানির পক্ষ থেকে বন বিভাগ ও প্রশাসনকে ম্যানেজ করে ৫ জন আসামী থেকে ম্যানেজার মুফিজুর রহমান ও সুপার ভাইজার মোঃ হানিফকে আসামী রেখে রহস্য জনক কারণে অন্য ৩জন আসামী বাদ পড়ে যায়। লামা বন বিভাগ সূত্রে জানা যায়, এ পর্যন্ত লামায় ৯টি বন্য হাতিকে হত্যা করা হয়েছে।  প্রতিটি হাতি হত্যার পর দাঁত উপড়ে ফেলা হয়েছে। এলাকার সচেতন মহলের দাবী সানমার রাবার কোম্পানি রাবার ব্যবসার পাশা পাশি হাতির দাঁত পাচারের সেন্ডিকেট হতে পারে। মামলা থেকে বাদ যাওয়া ও বর্তমান আসামীদেরকে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনা হলে মূল রহস্য বের হবে।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

নিবন্ধনের জন্য আবেদিত
Desing & Developed BY MONTAKIM