বাংলাদেশ, , শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২

ভারি বৃষ্টির আশঙ্কা : সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত

আলোকিত কক্সবাজার ।।  সংবাদটি প্রকাশিত হয়ঃ ২০১৫-১০-০৯ ১১:২৫:১৪  

আলোকিত কক্সবাজার ডেক্স॥

উত্তর বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপের প্রভাবে গভীর সঞ্চালনশীল মেঘমালা তৈরি হওয়ায় চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরের জন্য ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত জারি করেছে আবহাওয়া অধিদফতর। একই সঙ্গে দেশের বিভিন্ন স্থানে ভারি থেকে অতিভারি বৃষ্টির সঙ্গে ভূমি ধ্বসের আশঙ্কার কথাও জানিয়েছে আবহাওয়া বিভাগ।
এক সতর্কবার্তায় বৃহস্পতিবার জানানো হয়, উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত লঘুচাপটি ঘনীভূত হয়ে সুস্পষ্ট লঘুচাপ হিসেবে একই এলাকায় অবস্থান করছে। এর প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগর এলাকায় গভীর সঞ্চালনশীল মেঘমালা সৃষ্টি হচ্ছে। উত্তর বঙ্গোপসাগর, বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা এবং সমুদ্র বন্দরসমূহের উপর দিয়ে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।
উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি এসে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে সতর্কবার্তায়।
তিন নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত মানে হলো- বন্দর ও বন্দরে নোঙর করা জাহাজগুলোর দুর্যোগকবলিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। বন্দরে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে এবং ঘূর্ণি বাতাসের একটানা গতিবেগ ঘণ্টায় ৪০ থেকে ৫০ কিলোমিটার হতে পারে। ভারি বর্ষণের সতর্কবাণীতে বলা হয়, ‘সুস্পষ্ট লঘুচাপের প্রভাবে বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কোথাও কোথাও ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হতে পারে। এ জন্য চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের পাহাড়ি এলাকায় কোথাও কোথাও ভূমিধস হতে পারে।’
তবে বরিশাল, পটুয়াখালী, নোয়াখালী, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের অভ্যন্তরীণ নদীবন্দরগুলোকে ২ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া বিভাগ।
অপরদিকে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় আবহাওয়ার পূর্বাভাসে আবহাওয়া বিভাগ জানিয়েছে, বরিশাল, চট্টগ্রাম, ঢাকা ও সিলেট বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় এবং খুলনা ও রাজশাহী বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রংপুর বিভাগের দু’এক জায়গায় অস্থায়ী দমকা/ঝড়ো হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।
কাগজে কলমে বর্ষা ঋতু বেশ আগে বিদায় নিলেও বৃষ্টি শেষ আশ্বিনেও (বৃহস্পতিবার আশ্বিনের ২৩ তারিখ) সিক্ত করছে প্রকৃতিকে। সন্ধ্য ৬টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ বৃষ্টি হয়েছে হাতিয়ায় ২৬৯ মিলিমিটার। এ সময়ে ঢাকায় বৃষ্টি হয়েছে ১০ মিলিমিটার।


পূর্ববর্তী - পরবর্তী সংবাদ
                                       
ফেইসবুকে আমরা