বাংলাদেশ, , শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২

নিজেকে নিয়েই দুশ্চিন্তা আফ্রিদির

আলোকিত কক্সবাজার ।।  সংবাদটি প্রকাশিত হয়ঃ ২০১৫-১০-০৩ ১৯:০১:৪২  

স্পোর্টস ডেক্স॥

বছর সাতটি টি-টোয়েন্টি খেলেছে পাকিস্তান। এপ্রিলে বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচটি বাদে জিতেছে বাকি ছয়টিই। চার সিরিজে জয় তিনটিতেই। তাও আবার যেন-তেন নয়, প্রতিপক্ষকে ধবলধোলাই করে সিরিজ জিতেছে পাকিস্তান। দলের এমন সাফল্যে অধিনায়ক শহীদ আফ্রিদির মুখে চওড়া হাসি থাকার কথা। তবে নিজের ফর্মের কথা ভাবলে সে হাসিটা উবে যেতেও সময় লাগবে না পাকিস্তানি অলরাউন্ডারের।

ব্যাটে রান নেই, বলে নেই ধার। গত দশ ম্যাচে রান ১১০, উইকেট মাত্র ছয়টি। এ বছর খেলা সাত ম্যাচে রান ৮০, উইকেট মাত্র দুটি। টেস্ট-ওয়ানডে থেকে আগেই বিদায় নেওয়া আফ্রিদি আঁকড়ে ধরে আছেন কেবল টি-টোয়েন্টি। ক্যারিয়ার সায়াহ্নে এমন ফর্ম চিন্তার ভাঁজ ফেলেছে খেলতেও বেশ আগ্রহী ৩৫ বছর বয়সী পাকিস্তানি তারকার কপালে। উদ্বেগ ভরা কণ্ঠে আফ্রিদি বললেন, ‘ব্যাটিং ও বোলিংয়ে নিজের ফর্ম নিয়ে চিন্তিত। কারণ, টি-টোয়েন্টি দলের সবচেয়ে অভিজ্ঞ খেলোয়াড়ই শুধু নই, আমি অধিনায়কও। তাই ব্যাটে-বলে পারফর্ম করা আমার দায়িত্ব।’
ধারাবাহিকতা তাঁর ধাতে নেই। দুই ম্যাচে আগুন ঝরান তো চার ম্যাচে ঘুম। তবে এই ধারাবাহিকতা নিয়েই আফ্রিদিকে মনে হচ্ছে সবচেয়ে চিন্তিত, ‘এতগুলো বছর ধরে খেলার পর ধারাবাহিকভাবে পারফর্ম করতে না পারাটা হতাশার। তবে এটাও জানি, কঠোর পরিশ্রম আর সঠিক মনোযোগ আমাকে আমার সেরা ফর্ম ফিরিয়ে দেবে।’
সেই কঠোর পরিশ্রমে ধ্যান দিতে আফ্রিদি এখন লাহোরে। চোখ আগামী বছর ভারতে অনুষ্ঠেয় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে তাঁর চোখ। নিজের ফর্ম ফিরে পেতে, একই সঙ্গে আগামী বিশ্বকাপে দারুণ কিছুর আশায় সম্প্রতি নিজ শহর করাচি থেকে পুরো পরিবার নিয়ে চলে এসেছেন এখানে। আবাস পরিবর্তনের কারণ হিসেবে পাকিস্তানের টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক বললেন, ‘লাহোরে প্রশিক্ষণ সুবিধা অনেক ভালো। সেখানে জাতীয় ক্রিকেট একাডেমি রয়েছে। এ কারণে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগ পর্যন্ত সেখানে থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’


পূর্ববর্তী - পরবর্তী সংবাদ
                                       
ফেইসবুকে আমরা