শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১২:৩২ অপরাহ্ন
নোটিশঃ
আলোকিত কক্সবাজার অনলাইন পত্রিকার  উন্নয়ন কাজ চলছে ; সাময়িক সমস্যার জন্য আন্তিরকভাবে দুঃখিত - আলোকিত কক্সবাজার পরিবারে যুক্ত থাকায় আপনার কাছে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ।

পর্যটকদের নিরাপত্তায় প্রশাসন

নিজস্ব প্রতিবেদক:
  • প্রকাশিত সময় : সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৯১ বার পড়া হয়েছে

 

ফাইল ছবি।

 

বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত কক্সবাজার বছর জুড়েই মুখর থাকে পর্যটকের পদচারণায়। তাদের জন্য একদম অল্প খরচ থেকে শুরু করে পাঁচ তারকা হোটেল-মোটেল-রিসোর্টতো আছেই। আছে শতাধিক খাবার হোটেলও। পাশাপাশি সমুদ্রের সৌন্দর্য উপভোগ করতে আসা পর্যটকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে কোনো কমতি নেই প্রশাসনের।

কক্সবাজার হোটেল-মোটেল অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাংগঠনিক সম্পাদক ও ‘হোয়াইট অর্কিড’ নামে হোটেলের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) রিয়াদ ইফতেখার জানান, কক্সবাজারে প্রতিদিন লাখো মানুষের আবাসনের সুযোগ রয়েছে। শুধু দেশের যেকোনো শহর নয়, বিশ্বের নানান পর্যটন নগরীর চেয়ে এখানে আবাসন খরচ তুলনামূলক কম বলেও জানান তিনি।

কক্সবাজার রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির সভাপতি আবুল কাশেম সিকদার জানান, ছোট-বড় মিলিয়ে প্রায় তিন শতাধিক রেস্তোঁরা কয়েকশ কনফেকশনারি পর্যটকদের খাবারের সেবা দিয়ে আসছে। কক্সবাজারে বেড়াতে আসা যেকোন পর্যটক হাত বাড়ালেই পান পছন্দসই খাবার।

কক্সবাজারের পুলিশ সুপার মো. হাসানুজ্জামান বলেন, ‘পর্যটন এলাকা হিসেবে কক্সবাজারে ট্যুরিস্ট পুলিশের একটি ইউনিট কাজ করছে। তাদের পাশাপাশি নিরাপত্তায় মাঠে কাজ করে জেলা পুলিশের বিভিন্ন ইউনিট। মাঠে থাকে বিশেষ গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরাও। বিশেষ দিন বলে কোনো কথা নেই। যেকোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে শহরের কয়েকটি পয়েন্টে চেকপোস্ট বসানোসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে নজরদারি রাখা হয়। সার্বক্ষণিক সবকিছু মনিটর করছে অর্ধশতাধিক সিসি ক্যামেরা।’

কক্সবাজার ট্যুরিস্ট পুলিশের পুলিশ সুপার (এসপি) মো. জিল্লুর রহমান জানান, পর্যটকদের ভ্রমণ নির্বিঘ্ন করতে কক্সবাজার শহরের কলাতলী, সি-ইন ও লাবণী পয়েন্ট সৈকতে ২৪ ঘণ্টাই পুলিশের পাহারা থাকে। এছাড়া হিমছড়ি, দরিয়ানগর ও ইনানি পর্যটন স্পটে পুলিশি নিরাপত্তা দেওয়া হয় রাত ১০টা পর্যন্ত। পর্যটকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে পর্যবেক্ষণ টাওয়ার স্থাপনের পাশাপাশি কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণ দপ্তর বা কন্ট্রোল রুম খোলা রয়েছে বলেও জানান তিনি।

তিনি আরও জানান, সমুদ্রে নামার আগে পর্যটকদের জোয়ার-ভাটার সময় দেখে নেয়ার পরামর্শ সংবলিত নির্দেশনা রয়েছে সৈকতের বিভিন্ন স্পটে। এছাড়া মাইকিং করেও তাদের সতর্ক করা হয়। সৈকতে যখন সবুজ পতাকা ওড়ানো থাকে তখন নামা যায় সৈকতে। আর ভাটার সময় ওড়ানো থাকে লাল নিশানা। তখন সমুদ্রে নামা বিপদজনক।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. মামুনূর রশীদ জানান, বিশেষ ছুটি ছাড়াও সপ্তাহিক ছুটির দিনে লাখো পর্যটক কক্সবাজার ভ্রমণে আসেন। পর্যটকরা যাতে ছিনতাই, ইভটিজিং, হয়রানি ও অতিরিক্ত ভাড়া কিংবা খাবার নিয়ে প্রতারণার শিকার না হন তা নিশ্চিতে পুরো পর্যটন এলাকায় ভ্রাম্যমান আদালত টহলে থাকেন। যেকোন অভিযোগ জানাতে জেলা প্রশাসনের পর্যটন সেলের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের একটি নাম্বার পর্যটন এলাকার তথ্য সেবা কেন্দ্রে দেয়া রয়েছে। যেকোন বিপদ বা প্রয়োজনে সেই নাম্বারে যোগাযোগ করলে সব ধরনের সহায়তা দেওয়া হয়।

সূত্র-জাগোনিউজ

অনলাইন বিজ্ঞাপন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

অনলাইন বিজ্ঞাপন

নিবন্ধনের জন্য আবেদিত
Design and Develop By MONTAKIM
themesba-lates1749691102