শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ০৮:২৭ অপরাহ্ন
নোটিশঃ
আলোকিত কক্সবাজার অনলাইন পত্রিকার  উন্নয়ন কাজ চলছে ; সাময়িক সমস্যার জন্য আন্তিরকভাবে দুঃখিত - আলোকিত কক্সবাজার পরিবারে যুক্ত থাকায় আপনার কাছে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ।

করোনায় থামাতে পারেনি প্রেমের গল্প

প্রতিবেদক এর নামঃ
  • প্রকাশিত সময় : সোমবার, ৩০ মার্চ, ২০২০
  • ৯২ বার পড়া হয়েছে

ডেস্ক নিউজ:

করোনায় কাপঁছে বিশ্ব। করোনার প্রকোপে ঘরবন্দি গোটা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রও। তাই ছবি তোলা নেশা ও পেশা হলেও, বাধ্য হয়েই বাড়িতে থাকতে হচ্ছিল জেরেমি কোহেন নামের এক মার্কিন নাগরিককে। তাতে আরো বেশি করে একাকিত্ব অনুভব করছিলেন তিনি। তাই ক্যামেরা হাতে এক বিকালে বাড়ির ছাদে এসে দাঁড়ান। তার সেখান থেকেই দেখা হয়ে যায় এক তরুণীর সঙ্গে। এক পাড়ার বাসিন্দা হয়েও একে অপরকে চিনতেন না তারা। কিন্তু করোনা কাছাকাছি এনে দিল মার্কিন এই তরুণ-তরুণীকে। ফোন নম্বর চালাচালি থেকে প্রথম সাক্ষাত্‍ সবই হলো।

জেরেমি জানিয়েছেন, ক্যামেরা নিয়ে দু’একটা ছবি তোলার পরই কিছু দূরের একটি বাড়ির ছাদে নজর পড়ে তার। দেখেন, বিকালের পড়ন্ত রোদে সেখানে নিজের খেয়ালে নেচে চলেছেন এক তরুণী। আশপাশের কোনো কিছুতেই ভ্রূক্ষেপ নেই তার। প্রথম দেখাতেই ওই তরুণীকে ভালো লেগে যায় তাকে। তাই সাহস করে ওই তরুণীকে দেখে হাত নাড়েন তিনি।

সেখান থেকেও পাল্টা জবাব আসে। তারপরই মেয়েটির সঙ্গে আলাপ জমানোর কথা মাথায় আসে তার। সেই মতো ঘরে ঢুকে নিজের একটি ড্রোন বার করেন। কাগজে নিজের ফোন নম্বর লিখে তার গায়ে সেঁটে দেন। তারপর সেটি উড়িয়ে ওই তরুণীর ছাদে পৌঁছে দেন।

ফোন নম্বর পেয়ে ওই তরুণী তাকে সরাসরি মেসেজ করেন বলে জানান জেরেমি। তারপরই তাদের মধ্যে কথাবার্তা শুরু হয়ে যায়। কিন্তু নিষেধাজ্ঞার জেরে মুখোমুখি দেখা হওয়ার উপায় ছিল না। জানতে পারেন, ওই তরুণীর নাম টোরি সিগনারেলা।

ভিডিও কলের মাধ্যমেই প্রথম ‘ডেট’র পরিকল্পনা করেন তারা। সেই মতো নিজের ব্যালকনিতে খাবার ও ওয়াইন নিয়ে বসেন জেরেমি। বাড়ির ছাদে খাবার নিয়ে বসেন টোরি। খেতে খেতে খোশগল্প চলতে থাকে ভিডিও কলে।

এই ফোন নম্বর চালাচালি থেকে প্রথম ‘ডেট’, সবকিছুই ভিডিও রেকর্ড করেন জেরেমি। নিজের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টে নিয়মিত তা পোস্ট করেন তিনি, যা দেখে তাদের উত্‍সাহ দেন নেটিজেনরা। তাতে জোর পেয়েই সম্প্রতি টোরির সঙ্গে দেখা করতে যান জেরেমি। কিন্তু সংক্রমিত হওয়ার ভয় থাকায়, নিজেকে প্লাস্টিকের বেলুনে মুড়ে নেন তিনি। সেই অবস্থাতেই পার্কে টোরির সঙ্গে পাশাপাশি হাঁটেন।

টোরির জন্য ফুলের তোড়াও নিয়ে যান তিনি। গ্লাভস পরা হাতে তা গ্রহণ করেন টোরিও। তবে এখনই খুব বেশি দেখা-সাক্ষাত্‍ করছেন না তারা। করোনার প্রকোপ কাটলে আবার দেখা করবেন তারা! আশায় বসে আছেন কবে আসবে সেই সময়! কবে আবার মিলিত হবেন এক সঙ্গে! সূত্র: গলফ নিউজ।

সূত্র-কালেরকণ্ঠ

অনলাইন বিজ্ঞাপন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

অনলাইন বিজ্ঞাপন

নিবন্ধনের জন্য আবেদিত
Design and Develop By MONTAKIM
themesba-lates1749691102