বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৪:৪৭ পূর্বাহ্ন
নোটিশঃ
আলোকিত কক্সবাজার অনলাইন পত্রিকার  উন্নয়ন কাজ চলছে ; সাময়িক সমস্যার জন্য আন্তিরকভাবে দুঃখিত - আলোকিত কক্সবাজার পরিবারে যুক্ত থাকায় আপনার কাছে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ।

কক্সবাজারে জন্মনিবন্ধন জটিলতায় অনিশ্চত লক্ষাধিক শিশুর শিক্ষা জীবন !

ওয়াহিদ রুবেলঃ
  • প্রকাশিত সময় : রবিবার, ২৪ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৮২ বার পড়া হয়েছে

জন্ম নিবন্ধন জটিলতায় পড়ে কক্সবাজারে প্রায় লক্ষাধিক শিশুর শিক্ষা জীবন অনিশ্চিয়তার মধ্যে পড়েছে। এতে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়ছেন অভিভাবক মহল। শিশুর ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে দ্রুত সময়ে জন্ম নিবন্ধন জটিলতা নিরসনের দাবি জানিয়েছেন তারা।

নিবন্ধন বিষয়টি শিক্ষা অফিস সংশ্লিষ্ট নয় বলে দাবি করেছেন সংশ্লিষ্টরা।

জানা যায়, ২০১৭ সালে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর নির্যাতনের মুখে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয় প্রায় সাড়ে এগারো লাখ রোহিঙ্গা। পালিয়ে আসা অনেক রোহিঙ্গা পরিবার লোকালয়ে ঢুকে পড়ে। তারা কৌশলে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব হাতিয়ে নিতে জন্ম নিবন্ধন সংগ্রহ করছে। এ অবস্থায় সরকারের পক্ষ থেকে কক্সবাজার অঞ্চলে জন্ম নিবন্ধন সরবরাহ বন্ধ রাখে। প্রায় তিন বছর পরে ২০২০ সালের ৩১ আগস্ট জন্ম নিবন্ধন খোলে দেয় সরকার। একই সাথে শিশুদের স্কুল ভর্তিতে জন্ম নিবন্ধন বাধ্যতামূলক করে। এ অবস্থায় জন্মনিবন্ধন পেতে ইউনিয়ন পরিষদ ও পৌরসভাগুলোতে ভীড় করতে থাকে পিতামাতা।

এদিকে শিশুদের জন্ম নিবন্ধন সংগ্রহ করতে গিয়ে বিপাকে পড়ছেন অভিভাবক মহল। পিতামাতার জাতীয় পরিচয় পত্র, টিকা কার্ড, জমির দলিল, হোল্ডিং ট্যাক্স সরবরাহ করলেও শিশুর জন্মনিবন্ধন মিলছে না। সাথে শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ, চিকিৎসকের প্রত্যাযন পত্র, পিতামাতার মৃত্যু সনদও দিতে হচ্ছে। এসব কাগজপত্র সংগ্রহ করতে হিমশিম খাচ্ছেন অভিভাবক মহল।

ভুক্তভোগীরা জানান, শিশুর জন্ম নিবন্ধন সংগ্রহ করতে গিয়ে পিতা মাতার নিবন্ধন পৌরসভায় জমা দিতে হচ্ছে। যাদের নিবন্ধন নেই তাদের নতুন করে জন্ম নিবন্ধন করতে হচ্ছে। পিতামাতার একটি কাগজও অসম্পূর্ণ থাকলে নিবন্ধন দেয়া হচ্ছে না। এতে অনেক অভিভাবক জন্ম নিবন্ধন জটিলতায় পড়েছেন। আর জন্মনিবন্ধন না পেয়ে স্কুলে শিশুদের ভর্তি করাতে পারছেন না অনেকে। ফলে জেলায় লক্ষাধিক শিশুর ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

তাদের দাবি, যদি পিতামাতা বাংদেশের জাতীয় পরিচয় পত্র বহন করে সেক্ষেত্রে শুধু মাত্র শিশুর জন্ম নিবন্ধন বা স্বাস্থ্য টিকার কার্ড দেয়া যেতে পারে। কিন্তু সেটি করা হচ্ছে না। যার ফলে শিশু ভর্তির জটিলতা দেখা দিয়েছে।

জসিম উদ্দিন নামে এক অভিবাক বলেন, অনেক অনুনয় বিনয় করে নিবন্ধন ছাড়া শিশুকে স্কুলে ভর্তি করিয়েছি। আজ (রবিবার) স্কুল থেকে ফোন দিয়েছে নিবন্ধন দিতে না পারলে ভর্তি বাতিল হবে। এ অবস্থায় সন্তানের ভবিষ্যত নিয়ে আমি শঙ্কায় রয়েছি।

তিনি বলেন, যখন শিশুর জন্ম নিবন্ধনের জন্য ইউনিয়ন পরিষদে যায়, তখন আমাদের নিবন্ধন দিতে বলেন। আমাদের জন্ম নিবন্ধন সংগ্রহ করতে গিয়ে আবার আমার পিতামাতার জন্ম নিবন্ধন চাইলো সংশ্লিষ্টরা। এতে দীর্ঘ সময় লাগছে। এটি যেমন অযৌক্তিক, তেমনি বিড়ম্বনার।

হাসিনা আক্তার নামে আরেক অভিভাবক বলেন, আমার ছেলেকে স্কুলে ভর্তি করাতে গেলে জন্ম নিবন্ধন দিতে বলেছে। আমাদের জাতীয়তা সনদ ও সন্তানের টিকা কার্ড দেয়ার পরও ভর্তি করানো হয নি। তাই আগে আমাদের নিবন্ধনের জন্য আবেদন করেছি।

কক্সবাজার পৌরসভা কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ১২ টি ওয়ার্ডে ২০ হাজারের অধিক আবেদন জমা পড়েছে। সমস্যা হচ্ছে শিশুর একটি জন্ম নিবন্ধন সংগ্রহ করতে আরো পিতামতার নিবন্ধনের কাগজপত্র জমা নিতে হচ্ছে। এছাড়া ৭৪ টি ইউনিয়ন পরিষদ ও পৌরসভার সব আবেদন একটি সার্ভারে আপলোড করতে হচ্ছে। এতে অনেক সময় সার্ভারে সমস্যা দেখা দেয়। যার কারণে নিবন্ধন পেতে দেরি হচ্ছে।

কক্সবাজার পৌরসভার সচিব রাসেল চৌধুরী বলেন, জন্ম নিবন্ধনের বিষয়টি অনেকে আমাদের কাছে অভিযোগ করেছেন। আমরা বিষয়টি সংশ্লিষ্টদের জানিয়েছি। এর বাইরে আমাদের আর কোন কাজ নেই। সিদ্ধান্ত উপরের মহলের।

অপরদিকে কক্সবাজার জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, কক্সবাজারে ৮ উপজেলায় ৬৫৬ টি সরকারি স্কুল রয়েছে। কিন্ডার গার্টেন রয়েছে আরো কয়েক শত। যেখানে গেল বছর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তিন লাখের অধিক শিশু ভর্তি হয়েছিল। এ বছর তার চেয়ে কম শিশু ভর্তি হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে বলে দাবি তাদের।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আসাদুজ্জামান চৌধুরী বলেন, জন্ম নিবন্ধনের বিষয়টি আমাদের করার কিছু নেই। তবে, আমরা বলেছি কিছুটা নমনীয়ভাবে দেখার নির্দেশনা ও পরবর্তীতে নিবন্ধন সরবরাহের নিশ্চয়তা নিয়ে মাধ্যমে ভর্তি করাতে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা) শাখার অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তা আমিন আল পারভেজ বলেন, যদি কোন ব্যাক্তির এ ধরনের সমস্যায় থাকেন তবে, আমাদের সাথে যোগাযোগ করলে সমস্যার সমাধানের চেষ্টা করবো।

অনলাইন বিজ্ঞাপন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

অনলাইন বিজ্ঞাপন

নিবন্ধনের জন্য আবেদিত
Design and Develop By MONTAKIM
themesba-lates1749691102