সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৫:১৭ পূর্বাহ্ন
নোটিশঃ
আলোকিত কক্সবাজার অনলাইন পত্রিকার  উন্নয়ন কাজ চলছে ; সাময়িক সমস্যার জন্য আন্তিরকভাবে দুঃখিত - আলোকিত কক্সবাজার পরিবারে যুক্ত থাকায় আপনার কাছে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ।

ওসি প্রদীপসহ ২৯ জনের বিরুদ্ধে করা হত্যার অভিযোগ খারিজ পুলিশের মামলা তদন্ত করবে সিআইডি

ওয়াহিদ রুবেল:
  • প্রকাশিত সময় : বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট, ২০২০
  • ২৬৫ বার পড়া হয়েছে

কক্সবাজারের মহেশখালীতে আলোচিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত আবদুস সাত্তারের স্ত্রীর দায়েরকৃত অভিযোগটি খারিজ করে দিয়েছে আদালত। একই সাথে বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় পুলিশের দায়ের করা মামলাটি তদন্তের জন্য সিআইডিকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার (১৩ আগস্ট) দুপুরে মহেশখালীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আব্বাস উদ্দিনের আদালত এ আদশে দেন।

এর আগে বুধবার (১২ আগস্ট) নিহত আব্দুস সাত্তারের স্ত্রী হামিদা আক্তার (৪০) বাদী হয়ে ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও চার পুলিশ সদস্যসহ ২৯ জনের নামে আদালতে অভিযোগ দায়ের করেন।

বাদীর আইনজীবী এ্যাডভোকেট শহিদুল ইসলাম তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, উচ্চ আদালতে রিট মামলা থাকায় নতুন করে দায়ের করা মামলাটি নিতে অপারগতা প্রকাশ করেছেন আদালত। ফলে আমাদের অভিযোগটি খারিজ করে দেয়া হয়েছে। একই সাথে ঘটনার সময় অজ্ঞাতনামা আসামী দেখিয়ে পুলিশের দায়ের করা মামলাটি এসপি পদমর্যদার একজন কর্মকর্তার নেতৃত্বে তদন্ত করার জন্য সিআইডিকে নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে।

বাদি পক্ষের আইনজীবী বলেন, আদালতে করা অভিযোগে সাবেক ওসি প্রদীপ ছাড়াও পুলিশের পাঁচ সদস্য এসআই হারুনুর রশীদ, এসআই ইমাম হোসেন, এএসআই মনিরুল ইসলাম, এএসআই শাহেদুল ইসলাম ও এএসআই আজিম উদ্দিনকে আসামি হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।

এদিকে অভিযোগকারী হামিদা আক্তার অভিযোগে উল্লেখ করেন, ২০১৭ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি সকাল ৭টার দিকে ফেরদৌস বাহিনীর সহায়তায় হোয়ানকের লম্বাশিয়া এলাকায় তার স্বামী আবদুস সাত্তারকে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় মামলা করতে গেলে পুলিশ মামলা নেয়নি। পরে উচ্চ আদালতের শরণাপন্ন হয়ে একটি রিটপিটিশন করেন তিনি।

হামিদা বেগমের করা রিটের শুনানি নিয়ে হাইকোর্ট ২০১৭ সালের ৭ জুন (নং-৭৭৯৩/১৭ মূলে) ‘ট্রিট ফর এফআইআর’ হিসেবে গণ্য করতে আদেশ দেন বিচারক।

এতে বলা হয়, হামিদা বেগম এজাহার দাখিল করলে মহেশখালী থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে তা তাৎক্ষণিক গ্রহণ করতে হবে। এ আদেশ প্রত্যাহার চেয়ে পুলিশ মহাপরিদর্শকের (আইজিপি) পক্ষে হাইকোর্টে আবেদন করা হয়। স্বরাষ্ট্র সচিবের (জননিরাপত্তা বিভাগ) পক্ষে আপিল বিভাগে এ আবেদন করা হয়। উক্ত আবেদনের শুনানি নিয়ে ২০১৮ সালের ১৩ মে আপিল বিভাগ আদেশ দেন। এতে রুল ইস্যু না করে এজাহার গ্রহণ করতে হাইকোর্টের দেয়া আদেশ বাতিল করা হয়। একই সঙ্গে ওই রিটটি মামলা হিসেবে নতুন করে শুনানি করতে বলা হয়।

ওই সময় হাইকোর্টে রিট পিটিশনকারী অ্যাডভোকেট রাশেদুল হক খোকন জানান, উচ্চ আদালত থানায় মামলাটি করার নির্দেশ দেন। কিন্তু পরে আইজিপির পক্ষ থেকে আদেশ স্থগিতের আবেদনের প্রেক্ষিতে তা স্থগিত করেন উচ্চ আদালত।

উল্লেখ্য, গত ৩১ জুলাই রাতে টেকনাফ বাহারছড়া চেকপোস্টে গাড়ি তল্লাশির নামে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান। ৫ আগস্ট নিহত সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস বাদী হয়ে কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটআদালতে ইন্সপেক্টর লিয়াকত, ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ ৯ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেন। ৬ আগস্ট বরখাস্ত ওসি প্রদীপ ও লিয়াকতসহ ৭ আসামি কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আত্মসমর্পণ করেন।

র‌্যাবের পক্ষে করা ১০ দিনের রিমান্ড আবেদনে ইন্সপেক্টর লিয়াকত, ওসি প্রদীপ এবং এসআই নন্দ দুলাল রক্ষিতের ৭ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করে আদালত। এরপর থেকে টেকনাফ ও মহেশখালীতে তার (ওসি প্রদীপের) দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত পক্ষ মামলা করতে আদালতের স্বরণাপন্ন হচ্ছেন। এদের মাঝে সে সময় ক্রসফায়ারে নিহত সত্তারের স্ত্রী হামিদা প্রথম অভিযোগকারি।

অনলাইন বিজ্ঞাপন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

অনলাইন বিজ্ঞাপন

নিবন্ধনের জন্য আবেদিত
Design and Develop By MONTAKIM
themesba-lates1749691102