তিনযুগও সংস্কার হয়নি ঈদগাঁওর ডাকঘর

তিনযুগও সংস্কার হয়নি ঈদগাঁওর ডাকঘর

ভাগ

এম আবুহেনা সাগর,ঈদগাঁও

দেশের সবখানে উন্নয়নের ছোঁয়া পেলেও জেলা সদরের বৃহত্তর বানিজ্যিক কেন্দ্র ঈদগাঁওর সরকারী উপ-ডাকঘরটি দীর্ঘ তিনযুগ ধরে সংস্কারবিহীন পড়ে রয়েছে। এ নিয়ে হতাশায় রয়েছেন ডাকঘরের গ্রাহক। নতুন ভবন নির্মানের দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসীর।

কতৃপক্ষের সুদৃষ্টি না থাকায় ডিজিটালের যুগেও এই অফিসটি জরার্জীণ অবস্থায় পড়ে রয়েছে বলে দাবি করেছেন তারা। এছাড়াও নানা কষ্টের বিনিময়ে অফিসিয়ালি কাজকর্ম নিয়ে কোনরকম দিনপার করে চলছে কর্মকতা কর্মচারীগন। বর্তমান সময়ে দিন বদলের যুগে উন্নয়ন হলেও এখনো পর্যন্ত ঈদগাঁওর উপ ডাক ঘরটি পূর্ণাঙ্গ একটি ভবন থেকে পিছিয়ে রয়েছে। যার ফলে বৃহত্তর এলাকার গ্রাহকরা ডাকঘরের সেবা থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে।

প্রাপ্ত তথ্য মতে, সদরের ঈদগাঁও বাজারের শাপলা চক্তর তথা এককালের ঐতিহ্যবাহী বটগাছ তলায় সন্নিকটে অবস্থিত দীর্ঘ প্রায় তিনযুগ পূর্বে নির্মিত হয় এই উপ ডাকঘরটি অল্প সংখ্যক জমিতে। সে থেকে এই পর্যন্তও একই অবস্থায় পতিত রয়েছে। হয়নি কোন পরিবর্তন। প্রতি বছর বর্ষায় ভিজে,রৌদ্রে পুড়ে বেহাল অবস্থা হয়ে পড়ে এই ডাকঘরটির। এছাড়াও বর্ষা মৌসুমে ডাকঘরের ভেতরে বাহিরে হাটু পরিমান পানিতে নিমজ্জিত থাকে। বিগত  বছরাধিক পূর্বে ঈদগাঁওতে ডাকঘরের একটি ভবন নির্মানের লক্ষে উধ্বর্তন কতৃপক্ষরা জায়গা পরিমাপ করে গেলেও এখনো নির্মিত হয়নি সেই ভবন। এমনকি এ উপ-ডাকঘরের আওতাধীন ঈদগড়,পোকখালী,নাপিতখালী,ইসলামাবাদ,ইসলামপুর,ছৌফলদন্ডী,ভারুয়াখালীতে শাখা ডাক ঘর রয়েছে। ডাকঘরের প্রয়োজনীর আসবাব পত্রও নেই তেমন। কোন গ্রাহক সেবা নিতে আসলে দাঁডিয়ে তাকে অপেক্ষা করতে হয়। দরজা জানালাও করুন দশা। বৃষ্টির পানি পড়ে অফিসে যা আছে তা ও নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। টিউবওয়েল ও বাথরুমের অবস্থা কিন্তু কাহিল। উপ ডাকঘরের পোষ্ট মাষ্টার রবি শংকর দে কক্সবাজার প্রতিদিনকে জানান,দীর্ঘবছর ধরে এই সরকারী অফিসটির বেহাল দশা। তাই দ্রুত সময়ে জরার্জীণ অফিসকে নতুন ভবনে রুপান্তরিত করার দাবী।

ভাগ

কোন মন্তব্য নেই

একটি উত্তর ত্যাগ