ঈদগাঁওতে অল্প বয়সী চালক ও তিন চাকার যানের বিরুদ্বে অভিযান

ঈদগাঁওতে অল্প বয়সী চালক ও তিন চাকার যানের বিরুদ্বে অভিযান

ভাগ

এম আবুহেনা সাগর,ঈদগাঁও

জেলা সদরের ব্যস্তবহুল বানিজ্যেক উপশহর ঈদগাঁও বাজারে অল্প বয়সী চালক ও তিন চাকার যানবাহন (অটোরিকসা)র বিরুদ্বে অভি যানে নেমেছে ঈদগাঁও ইউনিয়ন পরিষদ। এই মহতি উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন বাজারে আগত সাধারন লোকজন। ৩রা অক্টোবর সকাল আনুমানিক ১০টার দিকে পুরাতন পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র সংলগ্ন স্থানে ডিসি সড়কের দুদিক থেকে আসা অল্প বয়সী চালক ও অটোরিকসা জব্দ করে পরিষদে নিয়ে যায় চৌকিদারেরা। এটি দেখে সাধারন মানুষ মহাখুশিতে উৎফুল্ল হয়ে পড়ে। পাশাপাশি এ ধারা অব্যাহত রাখার দাবীও জানান অনেকে। এই ব্যাপারে ঈদগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছৈয়দ আলম রুপালী সৈকতকে জানান, এই প্রথমবারের মত কিশোর বয়সী চালক ও অটোরিকসা জব্দ করা হচ্ছে।

অভিভাবকদের কাছে মুসলেহার মাধ্যমে ছেড়ে দেয়া হবে। দ্বিতীয়বার আর ছাড় নয়। এ ধারা চলমান থাকবে বলেও জানায়। তবে সচেতন মহলের মতে, বৃহত্তম ঈদগাঁওর বিভিন্ন স্থানে এসব যানবাহনের মালিকদের বিরুদ্বে বিহীন ব্যবস্থা নেওয়া হোক। কারন তারা গ্রামাঞ্চলের অল্প বয়সী তরুনদের হাতে তাদের গাড়ী ভাড়া দিয়ে ফায়দা লুটার চেষ্টা করে। এদিকে দফাদার নুর মোহাম্মদ বলেন,চেয়ারম্যানের নিদের্শক্রমে জব্দ করা হচ্ছে অল্প বয়সী চালক এবং তিন চাকার যন্ত্র চালিত অটোরিকসা।

প্রসঙ্গত – চট্রগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের ঈদগাঁওর বাসষ্টেশনসহ বৃহৎ এলাকার প্রত্যান্ত গ্রামাঞ্চলের সড়ক উপসড়ক জুড়েই তিন চাকার যানবাহন এখন তরুন প্রজন্ম বা কিশোরের হাতে।

যাতে করে এসব যানবাহনের যাত্রীরা চরম আতংক মাথায় নিয়ে প্রতিনিয়ত আসা যাওয়া করে। অদক্ষ,আনাড়ী ও অল্প বয়সী চালকদের বিষয়ে দেখার কেউ না থাকায় হতাশ হয়ে পড়েন যাত্রী সাধারনসহ সচেতন লোকজন। এসব চালকদের বেপরোয়া যান চলাচলের কারনে যেকোন মুহুর্তে অপ্রীতিকর দূর্ঘটনার আশংকাও প্রকাশ করেন তারা। একদিকে এসব ব্যাটারী চালিত তিন চাকার গাড়ীর কারণে এলাকায় বিদ্যুতের অপচয় হচ্ছে, অন্যদিকে যত্রতত্র স্থানে বাড়ছে অযথা যানজট।

বিশেষ করে দেখা যায়, মহাসড়কে দুরপাল্লার বড় বড় গাড়ীর সাথে পাল্লা দিয়ে যন্ত্রচালিত তিন চাকার যানবাহন চলছে সমান তালে। অথচ হাইওয়ে পুলিশ কতৃক তিন চাকার যানবাহন মহাসড়কে না চালানোর জন্য মাইকিং করার পরেও এসব কে তোয়াক্কা না করে দেদারছে চালাচ্ছে গাড়ী।

এছাড়াও গ্রামীন নানা সড়কে অদক্ষ,আনাড়ী, অল্পবয়সী এবং প্রশিক্ষনবিহীন চালকের সংখ্যা বেড়েই চলছে। কোন রকম ভয়,দ্বিধা-দ্বন্ধ ছাড়া রাস্তায় দূরন্ত বেগে ছুটে চলছে তিন চাকার যান।

ছোট বড় দূর্ঘটনা ঘটে চলছে। যন্ত্রচালিত গাড়ী মহাসড়কের মত ব্যস্ত সড়কে চলে অনেকটা দূর্ঘটনার ঝুঁকি নিয়ে। বিদ্যুৎ চালিত অটো রিক্সা ও টমটমের পাল যেন বৃহত্তর এলাকার প্রত্যান্ত গ্রামাঞ্চলে ভরপুর হয়ে উঠেছে। পথচারীদের  মতে,এ যানবাহনের কারনে যানজট সৃষ্টি হওয়ায় বাজারে প্রবেশ করাতো দুরের কথা,হাঁটা চলাও দায় হয়ে পড়েছে। ঈদগাঁও বাজারসহ পাড়া মহল্লার সড়ক গুলোতে তিন চাকার গাড়ী মাত্রা তিরিক্ত বেড়ে যাওয়ার কারনে প্রতিনিয়ত যানজটের পাশাপাশি দূর্ঘটনা ঘটে যাচ্ছে।

তবে এসব যানবাহন নিয়ে কারো স্বস্তি আবার কারো অস্বস্তি প্রকাশ করতে শোনা যাচ্ছে। তবে কজন তিনচাকার চালকের সাথে কথা হলে তারা হতাশ কন্ঠে জানান, যদি মহাসড়ক থেকে এসব যান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়, তাহলে এলাকায় বেকারত্বের সংখ্যা বৃদ্বি পাবে।

ভাগ

কোন মন্তব্য নেই

একটি উত্তর ত্যাগ