প্রহার থেকে বাঁচতে পালাতে গিয়ে শিশুর মৃত্যু : যুবক আটক

প্রহার থেকে বাঁচতে পালাতে গিয়ে শিশুর মৃত্যু : যুবক আটক

ভাগ

বিশেষ প্রতিবেদক:
যু্বকের প্রহার থেকে বাঁচতে পালাতে গিয়ে অকস্মাত পড়ে করুণ মৃত্যু হয়েছে এতিম এক স্কুল ছাত্রের। কক্সবাজার শহরের বিজিবি ক্যাম্প এলাকার হিন্দুপাড়া সংলগ্ন প্রধান সড়কে এ ঘটনা ঘটে।
নিহত শিশুর নাম সাহাব উদ্দিন (১০) । তিনি বিজিবি ক্যাম্পের পেতা সওদাগর পাড়ার মৃত ফয়েজ উল্লাহ’র পুত্র ও লারপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেনীর শিক্ষার্থী।
তাকে হত্যা করা হয়েছে সন্দেহে শফিকুল (২৮) নামের এক যুবককে হাসপাতাল থেকে আটক করেছে পুলিশ। তিনিও বিজিবি ক্যাম্প এলাকার মাসুদ মিয়ার ছেলে।
পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্র জানায়, কয়েক বছর আগে সাহাবুদ্দিনের বাবা মা দুইজনেই মারা গেছে। সে তার বোনের বাড়িতে থাকে। সে ও তার বোনের মেয়ে লারপাড়া স্কুলে লেখাপড়া করে। স্কুলে তার বোনের মেয়ের সাথে আটক শফিকুলের শ্যালিকার ঝগড়া হয়। এ নিয়ে স্কুল ছুটির পর সাহাব উদ্দিন আটক শফিকুলের ছেলে ও শ্যালিকাকে মারধর করে। এরই জের ধরে শফিকুল সাহাবুদ্দিনকে ধাওয়া করে। পালাতে গিয়ে  একপর্যায়ে সাহাবউদ্দিন পড়ে গিয়ে জ্ঞান হারায়।
ওই শিশুকে অজ্ঞান অবস্থায় উদ্ধারকারী সিএনজি চালক মোস্তাফিজজুর রহমান বলেন,  বাসটার্মিনাল থেকে শহরের দিকে ফেরার পথে বিজিবি ক্যাম্পের একটু আগে শতাধিক মানুষের ঝটলা দেখে আমি গাড়ি থামায়। এগিয়ে গিয়ে দেখতে পাই একজন শিশু রাস্তায় পড়ে আছে। পরে এলাকাবাসীর সহযোগীতায়  শফিকুলকে সাথে নিয়ে ওই শিশুকে আমি হাসপাতাল আনি। পরে জরুরী বিভাগের শিশুকে মৃত ঘোষনা করলে আমার সাথে আসা শফিকুল পালিয়ে যাবার চেষ্টা করে। তখন হাসপাতাল কর্মচারীদের সহযোগীতায় তাকে ধরে পুলিশে সোপার্দ করা হয়।
সিএনজি চালক আরো বলেন, শিশুকে নিয়ে হাসপাতাল আসার পথে শফিকুল আমাকে জানায় ওই শিশু তার ছেলে ও শ্যালিকাকে মারধর করেছে। একারণে তিনি শিশুটিকে ধাওয়া করেছিল।
কক্সবাজার সদর থানার ওসি (অপারেশন)  মাঈন উদ্দিন বলেন, শিশুটির শরীরে কোন আঘাতে চিহ্ন নেই।  ধাওয়া খেয়ে পালাতে গিয়ে আছড়ে পড়ে স্ট্রোক করে তাঁর মৃত্যু হয়েছে ধারনা করা হচ্ছে। তবে আটককে জিজ্ঞাসাবাদ করে বিস্তারিত জানা সম্ভব হবে।
কক্সবাজার সদর থানার ওসি ফরিদ উদ্দিন খন্দকার বলেন, ঘটনাস্পটের আশপাশের লোকজন, স্কুল শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত হওয়ার চেষ্টা চলছে।
ভাগ

কোন মন্তব্য নেই

একটি উত্তর ত্যাগ