সৌদির সহায়তায় ৫০০ শয্যায় উন্নীত হচ্ছে কক্সবাজার সদর হাসপাতাল

সৌদির সহায়তায় ৫০০ শয্যায় উন্নীত হচ্ছে কক্সবাজার সদর হাসপাতাল

ভাগ

ওয়াহিদুর রহমান রুবেল.
বর্তমানের চেয়ে প্রায় দিগুণ সক্ষমতা পাচ্ছে কক্সবাজার সদর হাসপাতাল। ২৫০ শয্যার এ হাসপাতালটিতে নতুন ২৫০ শয্যা যুক্ত হয়ে ৫০০ শয্যার হাসপাতালে উন্নিত সংযুক্ত হচ্ছে আধুনিক চিকিৎসা প্রযুক্তি। এটি বাস্তবায়নে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মাধ্যমে কক্সবাজার সদর হাসপাতালের উন্নয়নে ২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার অনুদান দিয়েছে সৌদি আরবের কিং সালমান রিলিফ সেন্টার।
বৃহস্পতিবার দুপুরে  কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল পরিদর্শন শেষে এক মতবিনিময় সভায়  সৌদি আরবের কিং সালমান রিলিফ সেন্টার সুপারভাইজার জেনারেল ড. আবদুল্লাহ আল রাবিয়াহ এসব তথ্য জানান।
স্বাস্থ্য খাতে সৌদি-বাংলাদেশ অংশিদারিত্ব মুলক কাজ করবে উল্লেখ করে সৌদি আরবের সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও কিং সালমান  রিলিফ ্এন্ড হিউম্যানিটারিয়ান সেন্টারের সুপারভাইজার জেনারেল ড.আবদুল্লাহ আল রাবিয়াহ বলেছেন, নিজদেশে নিপীড়নের মুখে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের মানবিক সহায়তা দিচ্ছে সৌদি সরকার। কিন্তু রোহিঙ্গাদের কারণে  বাংলাদেশীরা চরম ভোগান্তি পোহাচ্ছে। তাই রোহিঙ্গাদের পাশাপাশি স্থানীয় জনগনের স্বাস্থ্য সেবার মান উন্নয়নেও কাজ করবে সৌদি সরকার। এর সূচনা সরূপ কক্সবাজার সদর হাসপাতালকে ২৫০ শয্যা থেকে ৫০০ শয্যায় উন্নীত করনে সাবির্ক সহায়তার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এখানে উন্নত চিকিৎসার সব ধরনে  যন্ত্রপাতি সরবরাহ করা হবে।
তিনি আরো বলেন বাংলাদেশ সৌদি আরবের অনেক পুরানো বন্ধু। বাংলাদেশের সাথে আমাদের অনেক বিষয়ে দীর্ঘ দিনের সুসম্পর্ক আছে। বর্তমানে এত বিপুল পরিমান রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে তাদের ভরণ পোষন এবং চিকিৎসা করিয়ে বাংলাদেশ বিশ্বের কাছে সম্মানের জায়গা করে নিয়েছে। তাই সৌদি আরবের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহায়তা অব্যাহত থাকবে। বিশেষ করে স্বাস্থ্য খাতে আমরা অংশিদারিত্ব মুলক ভাবে কাজ করবো। এ পর্যন্ত প্রায় ২০ মিলিয়ন সৌদি রিয়াল সহায়তা দেয়া হয়েছে। রোহিঙ্গা ইস্যু সমাধান না হওয়া পর্যন্ত সহায়তা অব্যাহত রেখে সেটার আকার বাড়বে।
বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় কক্সবাজার সদর হাসপাতালে আসেন ড.রাবিয়াহ। তিনি প্রথমে হাসপাতালের রান্না ঘর, রোহিঙ্গাদের চিকিৎসার স্থান ও বিভিন্ন ওয়ার্ড ঘুরে দেখেন।
এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন ডাবিøইও এসই ও কর্মকর্তা ডা. বার্ডন জন রানা, কক্সবাজার সদর হাসপাতালের তত্ত¡াবধায়ক ডা. পুঁ চ নু, সহকারী পরিচালক ডা. সোলতান আহাম্মদ সিরাজী, ডা. কামাল উদ্দিন, আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. শাহীন আবদুর রহমান চৌধুরীসহ ডাক্তার, নার্স, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।
এরআগে কক্সবাজারের একটি হোটেলে এইএনএইচসিআর’ এর সাথে এক চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠান করেন সৌদি প্রতিনিধি দল। সেখানে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জরুরী সহায়তা প্রদানের জন্য ইউএনএইচসিআরকে ৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার প্রদান করেছে কিং সালমান রিলিফ সেন্টার। ইউএনএইচসিআর এর গালফ দেশ সমূহের আঞ্চলিক প্রতিনিধি খালিদ খালিফা চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। এসময় তিনি বিশ্ব সম্প্রদায়কে রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়ানোর আহবান জানিয়ে বলেন, রোহিঙ্গাদের সম্মানজনক, নিরাপদ ও স্থায়ীভাবে নিজ ভ‚মিতে প্রত্যাবাসন প্রত্যাশা করে ইউএনএইচসিআর।
কক্সবাজার সদর হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা. পুঁ চ নু বলেন, সদর হাসপাতালটি এ নতুন সংযোজন জেলা বাসীর স্বাস্থ্য সেবায় মাইলফলক হয়ে দেখা দিবে। রোহিঙ্গা অবস্থান আধিক্য থাকায় সদর হাসপাতালের পাশাপাশি উখিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জন্য বড় একটি বরাদ্দ দরকার। আশা করি দাতাদের কাছ থেকে ভবিষ্যতে এর জন্য আশানরূপ অনুদান পাব।
ভাগ

কোন মন্তব্য নেই

একটি উত্তর ত্যাগ