টমটম চালককে হত্যার দায়ে কক্সবাজারে ৫ জনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড

টমটম চালককে হত্যার দায়ে কক্সবাজারে ৫ জনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড

ভাগ

আদালত প্রতিবেদক.
কক্সবাজারের হিমছড়িতে টমটম চালক জহিরুল আলমকে হত্যার দায়ে ৫ জনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছে আদালত। পাশাপাশি প্রতিজনকে ২০ হাজার টাকা অর্থদন্ডও দেয়া হয়। তা অনাদায়ে আরো ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড দেয়া হয়। মঙ্গলবার দুপুরে কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মীর শফিকুল আলম এ আদেশ দেন। ২০১২ সালের ৩১ মার্চ ভ্রমণের কথা বলে পর্যটনস্পট হিমছড়িতে নিয়ে এ হত্যাকান্ড ঘটনায় দুর্বৃত্তরা।

নিহত জহিরুল আলম রামু উপজেলার চাকমারকুল এলাকার ইয়াকুব আলীর ছেলে।

কারাদন্ডপ্রাপ্তরা হলো, রামু উপজেলার চেইন্দার আব্দুল হকের ছেলে ছৈয়দুল আমিন, টেকনাফের সিলবনিয়াপাড়ার মৃত ঈসমাইলের ছেলে মো. রফিক, টেকনাফের পল্লানপাড়ার মৃত শফির চেলে এনাম উদ্দিন রুবেল, চকরিয়া উপজেলার বদরখালীর মৃত নুরুজ্জামানের ছেলে শাহ নেওয়াজ ও টেকনাফের লম্বরীপাড়ার তাজুল ইসলামের ছেলে শফিকুল ইসলাম। তার মধ্যে শাহ নেওয়াজ ও শফিকুল ইসলাম পলাতক রয়েছে।

কক্সবাজারের জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) দীলিপ কুমার ধর জানান, ২০১২ সালের ৩১ মার্চ কক্সবাজারের হিমছড়িতে টমটম চালক জহিরুল আলমকে ভাড়া করে নিয়ে গিয়ে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় রামু থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) জামাল উদ্দিন বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন (রামু থানার মামলা নম্বর-৩০/২০১২)। দীর্ঘদিন বিচার শেষে দুপুরে আদালত ওই মামলায় পাঁচ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায় দিয়েছেন বিজ্ঞ জেলা জজ। পাশাপাশি প্রতিজনকে ২০ হাজার টাকা অর্থদন্ডও দেয়া হয়। তা অনাদায়ে আরো ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড ঘোষণা করা হয়েছে। রায় ঘোষণাকালে কারান্তিরিণ তিন আসামী আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

আসামী পক্ষে আদালতে লড়েন আবুল কালাম আজাদ ও সাবেক পিপি সশামীম আরা স্বপ্না। তারা রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপীল করবেন বলে উল্লেখ করেন।

ভাগ

কোন মন্তব্য নেই

একটি উত্তর ত্যাগ