যে কারণে যৌন মিলনে আগ্রহ হারাচ্ছেন মার্কিনিরা

যে কারণে যৌন মিলনে আগ্রহ হারাচ্ছেন মার্কিনিরা

ভাগ

আলোকিত কক্সবাজার ডেস্ক:

যৌনতা সম্পর্কে অতীতের তুলনায় বর্তমানে মানুষের জানাশোনার পরিমাণ একটু বেশিই। অনেক গবেষণায় দেখা যায়, নিয়মিত যৌন মিলনকারীদের রোগ-বালাই হওয়ার প্রবণতা অন্যদের তুলনায় কম। প্রাপ্ত বয়স্ক বেশিরভাগ মানুষ চাহিদামাফিক যৌনতা নিশ্চিত করতে বিয়ে করেন।

প্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ার আগে অনেকেই বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। তবে সাম্প্রতিক এক গবেষণায় উঠে এসেছে, যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকরা যৌনমিলনে তেমন একটা উৎসাহী নন। যথাসম্ভব কম যৌন মিলনের চেষ্টা করেন তারা।

বছরে গড়ে মাত্র নয়বার যৌন মিলন করেন মার্কিনিরা। এর কারণ হিসেবে কর্মস্থলে দীর্ঘসময় অতিবাহিত, অতিমাত্রায় পর্নোগ্রাফি দেখা এবং হস্তমৈথুনের কথা উল্লেখ করা হয়েছে

অার্কাইভ অব সেক্সুয়াল বিহ্যাভিয়রের প্রকাশিত সাম্প্রতিক এক সামাজিক জরিপে বলা হয়েছে, বছরে গড়ে মাত্র নয়বার যৌন মিলন করেন মার্কিনিরা। এর কারণ হিসেবে কর্মস্থলে দীর্ঘসময় অতিবাহিত, অতিমাত্রায় পর্নোগ্রাফি দেখা এবং হস্তমৈথুনের কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

এছাড়া বেশিরভাগ মার্কিন নাগরিক শেষ বয়সে গিয়ে সন্তান নেয়ার দিকে ঝুঁকছেন। সেখানেও দেখা যাচ্ছে আরেক বিপত্তি। বেশিরভাগ মা-বাবা মনে করেন, তারা প্রয়োজনের তুলনায় অনেক বেশি কাজ করে ফেলেছেন। তার ওপর সন্তানকে স্কুলে নিয়ে যাওয়া-আসা করছেন। অ্যানার্জি হারিয়ে তাদের পক্ষে আর ওই দিন যৌন মিলন করা সম্ভব হয় না।

যৌন রোগ বিশেষজ্ঞ এরিক মারলোয়ী গাররিসন বলেন, বিয়ের কারণে যৌনতার পথ সুগম হওয়ার বদলে এখন অসুবিধা হয়ে গেছে। ভবিষ্যতে হয়তো গবেষণা হবে, বিয়ে কীভাবে যৌনতার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট?

তিনি আরও বলেন, মানুষজন এখন সঙ্গীর চেয়ে অন্য কিছুর প্রতি বেশি মনোযোগ দিচ্ছে। খাবারের সময় দেখা যাচ্ছে, সঙ্গীর প্রতি গুরুত্ব না দিয়ে কুকুরকে খাওয়াচ্ছেন। হাঁটার সময় কুকুরের সঙ্গে তারা হাঁটছে, গাড়িতে বসে মোবাইলের পর্দায় চোখ রাখছেন, ফলে যৌনতার দিকে তারা অমনোযোগী হয়ে পড়ছেন।

অথচ বেশিরভাগ মানুষ ইন্টারনেটে যৌন আধেয় সম্বলিত উপাদান খুঁজে দেখেন। ইউটিউবেও তারা পর্নোগ্রাফির প্রতি বেশি ঝোঁক দেখান। গবেষণায় দেখা গেছে, বাস্তবে কারো সঙ্গে যৌন মিলনের চেয়ে ইউটিউবে পর্নোগ্রাফি দেখতেই তারা বেশি আগ্রহী।

অনেকেই আবার হস্তমৈথুনের প্রতি বেশি অাগ্রহী। তরুণদের মধ্যে এই প্রবণতা বেশি। কারো সঙ্গে যৌন মিলনের চেয়ে তারা হস্তমৈথুনকে বেশি প্রাধান্য দেয়। পরবর্তী সময়েও সেই স্বভাব আর বদলায় না। নারীদের সঙ্গে যৌন মিলনকে তারা ঝামেলা বলে মনে করে। তার চেয়ে নেশাদ্রব্য গ্রহণ করে হস্তমৈথুন করাটাকে তুলনামূলকভাবে উন্নত পদ্ধতি হিসেবে বিবেচনা করে।

তবে যৌনরোগ বিশেষজ্ঞদের মতে, যৌন মিলনে নিরুৎসাহিত হয়ে সুস্থ যৌন জীবন সম্ভব নয়। নিয়মিত যৌন মিলনের ফলে ব্যক্তির শারীরিক নানা সমস্যার পাশাপাশি মানসিক প্রফুল্লতা আসে। আর নিজের চিন্তার পাশাপাশি সঙ্গীর কথাও তো ভাবতে হবে। সেকারণে দু’জনার সম্পর্ক বজায় রাখতে নিয়মিত যৌন মিলনই ভাল। সূত্র-জাগোনিউজ

ভাগ

কোন মন্তব্য নেই

একটি উত্তর ত্যাগ