ইসলামী শিষ্টাচার:দেখা-সাক্ষাতের আদব-কায়দা

ইসলামী শিষ্টাচার:দেখা-সাক্ষাতের আদব-কায়দা

ভাগ

মুহাম্মদ তাজুল ইসলাম:

কেবল নামাজ, রোজা, কোরবানি ও দাড়ি-টুপির নাম ইসলাম নয়। ইসলাম হলো জীবনের সব ক্ষেত্রের উত্কৃষ্ট জীবনপ্রণালী। আত্মকেন্দ্রিকতার পরিবর্তে এখানে সামাজিকতার মূল্য অনেক বেশি। ইসলামের যে বিধান রয়েছে, সেগুলোতে মানবতার কল্যাণই মুখ্য। কারো উপাসনা ও উপবাসে স্রষ্টার কিছু যায়-আসে না। ইসলামের বেশির ভাগ বিধিবিধানে সাম্য ও সামাজিকতার চিত্র ফুটে ওঠে। সবাইকে সমাজবান্ধব হওয়ার জন্য ইসলাম কিছু দিকনির্দেশনাও দিয়ে দিয়েছে। সমাজে থাকতে হলে অন্যের সঙ্গে প্রয়োজনে-অপ্রয়োজনে দেখা করতে হয়। সে ক্ষেত্রে ইসলামের বিধান হলো—এক. প্রথমে সালাম দেবে। সালাম পরস্পরের মধ্যে ভালোবাসা, আন্তরিকতা ও হৃদ্যতা সৃষ্টি করে। মহানবী (সা.) বলেন, ‘তোমরা ইমানদার না হওয়া পর্যন্ত জান্নাতে প্রবেশ করতে পারবে না, আর ইমানদার হতে পারবে না পরস্পরের মধ্যে ভালোবাসা তৈরি না হলে। আমি কি তোমাদের এমন একটি বিষয়ের কথা বলব, যা করলে তোমাদের পরস্পরের মধ্যে ভালোবাসা সৃষ্টি হবে? তোমরা পরস্পরের মধ্যে সালামের ব্যাপক প্রসার ঘটাও।’ (মুসলিম শরিফ, হাদিস : ৫৪) দুই. পরস্পর সালাম বিনিময়ের পর মোসাফাহা (হাত মেলানো) করবে। মহানবী (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘যে দুজন মুসলিম পরস্পর মিলিত হয়, তারপর তারা মোসাফাহা করে, তারা (সেই স্থান থেকে) পৃথক হওয়ার আগেই তাদের ক্ষমা করে দেওয়া হয়।’ (আবু দাউদ, হাদিস : ৫২১২; তিরমিজি, হাদিস : ২৭২৭)   তিন. বেগানা ও পরনারী-পরপুরুষের প্রতি দৃষ্টিপাত করা যাবে না। আল্লাহ বলেন, ‘মুমিনদের বলো, তারা যেন তাদের দৃষ্টি সংযত রাখে এবং লজ্জাস্থান হেফাজত করে। এটাই তাদের জন্য উত্তম।’ (সুরা : নূর, আয়াত : ৩০) চার. বেগানা নারীর সঙ্গে নির্জনে বসবে না। মহানবী (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘তোমাদের কেউ যেন কোনো (বেগানা) নারীর সঙ্গে নির্জনে না বসে। কেননা শয়তান তাদের মধ্যে তৃতীয় ব্যক্তি হয়ে যায়। (সে তাদের কুমন্ত্রণা দেয়)।’ (তিরমিজি, হাদিস : ২১৬৫) পাঁচ. আগত ব্যক্তির সম্মানে দাঁড়িয়ে তাকে অভিবাদন জানানো। হজরত আবু সাইদ খুদরি (রা.) সূত্রে বর্ণিত, মদিনার বনু কুরাইজার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় রাসুলুল্লাহ (সা.) হজরত সাদ ইবনে মুয়াজ (রা.)-কে ডেকে পাঠান। সাদ (রা.) একটি গাধায় চড়ে আসেন। রাসুলুল্লাহ (সা.) তাকে বললেন, ‘তোমরা তোমাদের নেতা সাদের দিকে দাঁড়িয়ে এগিয়ে যাও।’ (মুসলিম, হাদিস : ১৭৬৮) ছয়. আগত ব্যক্তির জন্য মাথা নত করা বা সিজদাবনত হওয়া যাবে না। এক ব্যক্তি মহানবী (সা.)-এর কাছে জিজ্ঞাসা করে, হে আল্লাহর রাসুল! আমাদের কেউ যখন তার ভাই বা বন্ধুর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে, তখন কি মস্তক অবনত করবে? মহানবী (সা.) বললেন, ‘না, কিন্তু মোসাফাহা করবে।’ (ইবনে মাজাহ, হাদিস : ৩৭০২) সাত. হাসিমুখে অন্যের সঙ্গে মিলিত হওয়া। মহানবী (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘তোমরা কোনো ভালো কাজকে ছোট মনে করবে না, যদিও তা অন্যের সঙ্গে হাসিমুখে সাক্ষাতের ব্যাপারেই হোক না কেন।’ (মুসলিম শরিফ, হাদিস : ২৬২৬) অন্য হাদিসে এসেছে, ‘অন্যের জন্য তোমার মুখের হাসি সদকাস্বরূপ। তোমার সৎ কাজের আদেশ ও অসৎ কাজের নিষেধ সদকাস্বরূপ। পথহারাকে পথ দেখিয়ে দেওয়া তোমার জন্য সদকাস্বরূপ। দৃষ্টিহীনকে পথ দেখানো তোমার জন্য সদকাস্বরূপ। রাস্তা থেকে পাথর, কাঁটা ও হাড্ডি সরিয়ে দেওয়া তোমার জন্য সদকাস্বরূপ। তোমার বালতি থেকে অন্যের বালতি ভরে দেওয়া তোমার জন্য সদকাস্বরূপ।’ (তিরমিজি, হাদিস : ১৯৫৬) লেখক : ইসলামী গবেষক।

সূত্র-কালেরকণ্ঠ

ভাগ

কোন মন্তব্য নেই

একটি উত্তর ত্যাগ