ধুমপান ছাড়তে চাইছেন? প্রথম তিন মাসে রয়েছে পুনরাসক্তির ঝুঁকি

ধুমপান ছাড়তে চাইছেন? প্রথম তিন মাসে রয়েছে পুনরাসক্তির ঝুঁকি

ভাগ

আলোকিত কক্সবাজার ডেক্স:

আপনি যদি একজন ধুমপায়ী হন কিন্তু ধুমপান ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, তাহলে আপনাকে এই কয়টি বিষয় খুব গুরুত্বের সঙ্গে নিতে হবে। নতুন এক গবেষণায় দেখা গেছে, ধুমপানের ফলে মস্তিষ্কে ডোপামিনের যে ঘাটতি দেখা দেয় তিন মাস পর তা পুনরায় স্বাভাবিক হয়ে আসে। ডোপামিন হলো নিউরণগুচ্ছ থেকে নিঃসরিত রাসায়নিক যা স্নায়ুকোষগুলোতে সংকেত পাঠানোর কাজে ব্যবহৃত হয়। ধুমপান ছেড়ে দেওয়ার পর ডোপামিন নিঃসরণ পদ্ধতি স্বাভাবিক হয়ে আসা থেকে প্রমাণিত হয় যে, ধুমপান সংশ্লিষ্ট স্বাস্থ্য সমস্যাগুলো মূলত একাধারে দীর্ঘদিন ধরে ধুমপানের ফলে সৃষ্টি হয়। তার মানে ধুমপানজনিত স্বাস্থ্য সমস্যা স্থায়ী কোনো ঝুঁকি নয়। সম্প্রতি বায়োলজিক্যাল সাইকিয়াট্রি জার্নালে প্রকাশিত ওই গবেষণা প্রতিবেদনে এমনটাই দাবি করা হয়েছে। এতে আরো সতর্ক করা হয়, কেউ ধুমপান ছেড়ে দেওয়ার পর প্রথম তিন মাস ফের ধুমপানের আসক্তিতে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিতে থাকেন। জার্মান গবেষকদের এই গবেষণার ফলে, ধুমপায়ীদের মধ্যে ডোপামিন নিঃসরণ পদ্ধতি স্বাভাবিক রাখার নতুন কোনো চিকিৎসা পদ্ধতিও আবিষ্কারের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। তবে তামাক সেবনের ফলে সৃষ্ট সমস্যাগুলোর চিকিৎসায় সাফল্য লাভ করতে হলে কেন শুধু বিশেষ ব্যক্তিরাই এ ধরনের নেশায় পুরোপুরি আসক্ত হয়ে পড়েন তা আবিষ্কার করাটাও একটি বড় চ্যালেঞ্জ, এমনটাই বলেছেন জার্মানির লিউব্যাক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আসা গবেষক লেনা র‌্যাদেমেচার। তিনি উল্লিখিত গবেষণার নেতৃত্ব দেন। এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়েই র্যাদেমেচারের নেতৃত্বাধীন গবেষক দল, ধুমপানে আসক্তদেরকে ধুমপান থেকে বেশ কিছুদিন বিরতিতে পাঠানোর আগে ও পরে তাদের মধ্যে ডোপামিন নিঃসরণ পদ্ধতির কার্যক্রম পরীক্ষা করে দেখেন। গবেষকরা পজিট্রন এমিশন টমোগ্রাফি নামে মস্তিষ্কের একটি চিত্রগ্রহণ কৌশল ব্যবহার করে ৩০ জন ধুমপায়ী ও ১৫ জন অধুমপায়ী ব্যক্তির মস্তিষ্কে ডোপামিন নিঃসরণ ক্ষমতার তুলনামূলক পরীক্ষা করে দেখেন। প্রাথমিক স্ক্যানে দেখা গেছে, অধুমপায়ীদের চেয়ে ধুমপায়ীদের মস্তিষ্কে ডোপামিন নিঃসরনের হার ১৫-২০% কম। এমনকি ধুমপান ছেড়ে দেওয়ার পরও দীর্ঘদিন ধরে ধুমপায়ীদের মাঝে এই ঘাটতি থেকে যায়। তবে একটা সময় পরে গিয়ে পুনরায় ডোপামিন নিঃসরণ স্বাভাবিক হয়ে আসে বলে জানান র্যাদেমেচার। এই গবেষণায় দেখা গেছে, ধুমপান ত্যাগ করার পর তিন মাস পর্যন্ত ডোপামিন নিঃসরণের ঘাটতি থেকেই যাচ্ছে। এই গবেষণার ফলে এই সম্ভাবনাও জেগেছে, ধুমপানে আসক্ত থাকা অবস্থায়ও হয়তো নতুন কোনো চিকিৎসার মাধ্যমে ডোপামিন নিঃসরণের হার স্বাভাবিক রাখা সম্ভবপর হতে পারে! সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস সূত্র-কালেরকণ্ঠ

ভাগ

কোন মন্তব্য নেই

একটি উত্তর ত্যাগ