বৃহস্পতিবার, ০৪ জুন ২০২০, ০৪:০৭ পূর্বাহ্ন
নোটিশঃ
আলোকিত কক্সবাজার অনলাইন পত্রিকার  উন্নয়ন কাজ চলছে ; সাময়িক সমস্যার জন্য আন্তিরকভাবে দুঃখিত - আলোকিত কক্সবাজার পরিবারে যুক্ত থাকায় আপনার কাছে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ।

ধুলোয় আচ্ছন্ন রামু স্বাস্থ্যঝুঁকিতে এলাকার মানুষ

প্রতিবেদক এর নামঃ
  • প্রকাশিত সময় : রবিবার, ১২ মে, ২০১৯
  • ৩৭১ বার পড়া হয়েছে

হাসান তারেক মুকিম,রামু ১২ মে ১৯

ধুলোয় আচ্ছন্ন রামুর পরিবেশ। মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুঁকিতে পড়েছে এলাকার জনসাধারন। রামুতে এ অবস্থা দীর্ঘদিন থেকে বিরাজমান থাকলেও প্রশাসনের নেই কোন কার্যকারী প্রদক্ষেপ। বর্ষাকালে কাদা আর শুস্ক মৌসমে ধুলো এ দু শব্দের সাথে রামুর মানুষের সাথে যেন মিতালি! শুস্ক মৌসুম শুরু হওয়ার সাথে সাথে ধুলোর নিয়ন্ত্রনে চলে যায় রামুর পরিবেশ। বর্তমান প্রেক্ষাপটে পুরো রামু উপজেলা যেন এখন ধুলোময় নগরীতে পরিনত ।

সরজমিনে পরিদর্শনে জানা যায়, রামুতে উল্লেখযোগ্যহারে ইটভাটার যানবাহনগুলো গিলে খাচ্ছে গ্রামীণ রাস্তাঘাট ও সংযুক্ত মহাসড়ক। অতিমাত্রায় ইট বোঝাইকৃত ভারী যানবাহনের কারনে সড়কগুলোর বেহাল অবস্থা। এ সমস্ত সড়কে ইট পাথর উঠে গিয়ে ধুলোয় একাকার হয়ে যায় চারদিকের পরিবেশ।

রামুতে মহাসড়ক হয়ে প্রতিদিন শতশত ট্রাক ও পিকআপ যোগে বালি সরবরাহ করা হয় ইটভাটা ও রেল লাইন সম্প্রসারনের কাজে। এ সব বালি সরবরাহকালে চলন্ত গাড়ি থেকে বালির কণা ধুলো হয়ে চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। পাশাপাশি মহাসড়কের পাশে ইট ব্যবসায়ীদের রাখা বালি, আধা ভাঙ্গা ইট,কংক্রিটের স্তুুপ থেকে প্রবাহমান বাতাসে ও দুরপাল্লার ভারি গাড়ির চাকায় পিষ্ট হয়ে প্রচন্ড ধুলা ছড়িয়ে পড়ে চারপাশে।

রামুতে গ্রামীণসড়ক ছাড়াও শুধুমাত্র মহাসড়কে বিশেষ করে রামুর পঞ্জেঘানা, শিকলঘাট,তেমুহনী, চৌমুহনী স্টেশন,বাইপাস, টেক্সটাইল ভোকেশনাল ইনিষ্টিটিউট,রামু কলেজ গেইট,মাত্তুরা রাস্তার মাথা, তেচ্ছিপুল, কলঘর, এন আলম ফিলিং স্টেশন, চাকমারকুল ও খরুলিয়া মোড় মহাসড়ের এ সমস্ত জায়গায় দুষিত ধুলোর প্রকোপ সবচেয়ে বেশি। এসড়কে প্রায় বিশটির অধিক স্কুল কলেজ মাদ্রাসা রয়েছে। এতে করে চরম দূর্ভোগের শিকার হচ্ছে এ সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীরা। ভোগান্তিতে পড়তে দেখা গেছে স্কুলগামী কোমলমতী শিশু থেকে সাধারন পথচারীদেরকেও। তাছাড়া রামু থেকে কক্সবাজার যাতায়তরত যাত্রীরা পড়েছে সীমাহীন দূর্ভোগে তারা নাকে হাত কিংবা রুমাল চেপে ধুলাবালি থেকে বাচাঁর চেষ্টা করে।

এব্যাপারে রামু ফতেখাঁরকুল(সদর) ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ফিরোজ মিয়া জানান, রামুর অধিকাংশ ইটভাটা রামু-কক্সবাজার মহাসড়কের আশে পাশে উপস্থিত। পাশাপাশি নতুন সংযোজন হয়েছে রেল লাইন সম্প্রসারেন কাজ। অতিমাত্রায় ইটভাটা ও রেল লাইনের কাজে বালি সরবরাহের যানবাহন চলাচলের ফলে রাস্তাঘাটগুলো ধুলোবালিতে পূর্ন হয়ে অনেক এলাকায় ধুলোর আবরন কুয়াশার চেয়ে গাঢ়। সকালে কিংবা স্বন্ধ্যায় ধুলো আর ধুলো, ধুলোর কারনে চোখ মেলে তাকানোর অবস্থা নেই। গাড়ির চাকার সঙ্গে ধুলা ছড়িয়ে পড়ছে চারদিকে। চোখের মধ্যে ঢুখে পড়ছে কচকচে ধুলা। ধুলো থেকে রেহায় পায়না সড়কগুলোর আশ পাশে থাকা দোকানপাট, হোটেল রেস্তোরা,বাজার মার্কেট। ধুলোবালিতে ঢাকা পড়েছে বির্ভিন্ন সুউচ্চ ভবনের সৌন্দর্য্য ।

এমনকি ধুলাবালির কারনে বাড়িঘরে বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এছাড়া সড়কের আশে পাশের সবুজ গাছপালাগুলোর ডালপালায় ধুলো জমে ধূসর গাঢ় হয়ে গেছে যার ফলে ঐ সমস্ত গাছপালার ফলন ও স্বাভাবিক বৃদ্ধি ব্যাহত হচ্ছে।

ধুলোর কারনে চরমস্বাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়ছে এলাকার জনসাধারন। ধুলোবালির কারনে চোখের রোগ,ব্রঙ্কাইটিস,সর্দি,কাশি, যক্ষা, শ^াসকষ্ট এলার্জিসহ ভাইরাসজনিত নানারোগে আক্রান্ত হওয়ার আশংকা থাকে, এমনকি দির্ঘদিন ধুলোবালির পরিবেশে থাকার ফলে ফুসফুসে ক্যান্সার ও কিডনিতে সমস্যা হতে পারে বলে জানান স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

রামু কলেজ গেইট এলাকার বাসিন্দা বিশিষ্ট আওয়ামীলীগ নেতা ওবাইদুল হক জানান, ইট ভাটা ও রেললাইনের ধুলোর কারনে বাড়ি থেকে বের হওয়া অসম্ভব হয়ে পড়েছে, প্রয়োজনের তাগিদে বের হলেও মাথার কালো চুল সাদা হয়ে যায়,নতুন কাপড় ধূসর রংয়ের আবরনে ঢেকে যায়, আর বাধ্যতামূলকভাবে চোখের গøাস পড়তে হয়।

জনদূর্ভোগের কথা মাথায় রেখে ব্যবসায়ীক ও উন্নয়ন কর্মকান্ড পরিচালনা করার বিধান রয়েছে। কিন্তু রামুতে ইটভাটার মালিকগন ও রেললাইন নির্মাণের ঠিকাদারী প্রতিষ্টান ম্যাক্স গ্রæপ কোন কিছুর তোয়াক্তা না করে নিয়মবর্হিভ‚ত কর্মকান্ড পরিচালনা করে যাচ্ছে। তিনি সড়কে পানি ছিটানো হলে ধুলোর প্রকোপ অনেকাংশে কমে আসবে বলে জানান।

এব্যাপারে রামু সরকারী বিশ^বিদ্যালয় কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আবদুল হক জানান, ধুলোর কারনে চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে রামু সরকারী বিশ^বিদ্যালয় কলেজ ও আশপাশের অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীসহ এলাকার জনসাধারন। এব্যাপারে প্রশাসনের তড়িৎ প্রদক্ষেপ জরুরী বলে জানান।

এব্যাপারে জনস্বার্থে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের তড়িৎ হস্তক্ষেপ কামনা করছেন রামুর সর্বস্থরের জনসাধারন।

W/R/H/T/R

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ বিভাগের আরো সংবাদ
নিবন্ধনের জন্য আবেদিত
Design and Develop By MONTAKIM
themesba-lates1749691102