নোটিশঃ
যান্ত্রিক  কারনে সাময়িক সমস্যার জন্য আন্তিরকভাবে দুঃখিত - আলোকিত কক্সবাজার পরিবারে যুক্ত থাকায় আপনার কাছে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ
উদ্বেগ রয়েছে রোহিঙ্গাদের নিয়ে : ডি-৮ মহাসচিব

উদ্বেগ রয়েছে রোহিঙ্গাদের নিয়ে : ডি-৮ মহাসচিব

ডেস্ক নিউজ:

ডেভেলপিং ৮ বা ডি-৮ একটি অর্থনৈতিক জোট হওয়ায় রোহিঙ্গা নিয়ে সংস্থাটির কোনো অবস্থান নেই। তবে এ নিয়ে উদ্বেগ রয়েছে বলে জানিয়েছেন ডি-৮ এর মহাসচিব কু জাফর কু শারি।

বৃহস্পতিবার (৩১ অক্টোবর) রাজধানীর ইনস্টিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজ (বিআইআইএসএস) মিলনায়তনে কূটনৈতিক প্রতিবেদকদের সংগঠন ডিক্যাব আয়োজিত ‘ডিক্যাব টকে’ অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

ডিক্যাব সভাপতি রাহীদ এজাজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম হাসিব। বাংলাদেশ সফররত ডি-৮ এর মহাসচিব কু জাফর কু শারি স্বাগত বক্তব্যের পাশাপাশি সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন।

আগামী বছর বাংলাদেশে ডি-৮ এর শীর্ষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এবারের সম্মেলনে ডি-৮-কে গতিশীল করতে অভিবাসী শ্রমিকদের রেমিট্যান্স ট্রান্সফার ও দালালমুক্ত করতে ভিন্ন প্ল্যাটফর্ম, সদস্য রাষ্ট্রগুলোর ব্যবসায়ীদের মধ্যে অর্থের পাশাপাশি বিনিময় প্রথা চালু, নাগরিকদের বিমানবন্দরে বিশেষ সুবিধা, ইসলামিক অফশোর ব্যাংকিং, ডি-৮-এর জন্য আলাদা অর্থনৈতিক অঞ্চল, ব্যবসায়ীদের জন্য স্থানীয় মুদ্রায় লেনদেনে ডি-৮ পেমেন্ট কার্ডসহ বিভিন্ন প্রস্তাবের কথা তুলে ধরেন ডি-৮ মহাসচিব।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকে রোহিঙ্গা প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে কু জাফর কু শারি বলেন, ‘রোহিঙ্গা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। তবে তা বিস্তারিত বলা যাবে না। আমরা একটি অর্থনৈতিক জোট। ফলে আমরা রাজনীতি নিয়ে কথা না বলতে চেষ্টা করি। তবে আমরা এ সত্যকে উপেক্ষা করতে পারি না যে, এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ পরিস্থিতি। এটিকে আমি মানবিক দৃষ্টিকোণে দেখি। আমরা অর্থনৈতিক উন্নতির দিক বিবেচনা করে যা করা যায় তা করব। রোহিঙ্গা নিয়ে আমাদের কোনো অবস্থান নেই। তবে এ নিয়ে উদ্বেগ রয়েছে।’

সদস্য রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে অর্থনৈতিক সহযোগিতা নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমাদের অবশ্যই স্বীকার করে নিতে হবে যে, যে লক্ষ্য নিয়ে কাজ শুরু হয়েছিল তা পূরণ হয়নি। আমাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ডি-৮ এর সদস্য রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে ৫০০ বিলিয়ন ডলারের বাণিজ্য। যা ৯০ দশকের শেষ দিকে মাত্র ১৫ বিলিয়ন ডলার ছিল।’

‘২০১৮ সালে এ বাণিজ্য ১১০ কোটির ডলারের গেছে। কিছু দূর আমরা এগিয়েছি। আমি মনে করি, আমাদের বাস্তবসম্মত হতে হবে। আমরা ২০৩০ এর মধ্যে ৫০০ বিলিয়ন ডলারের বাণিজ্যে পৌঁছাতে চাই। আমরা মনে করি, এ লক্ষ্যে পৌঁছানো সম্ভব’, যোগ করেন কু শারি।

অগ্রাধিকারমূলক বাণিজ্য চুক্তি নিয়ে ডি-৮ মহাসচিব বলেন, ‘সদস্য রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে অগ্রাধিকারমূলক বাণিজ্য চুক্তি সই হয়েছে। তবে বাস্তবায়ন হয়েছে আংশিক। আমরা সদস্য রাষ্ট্রদের চাপ দিচ্ছি পূর্ণ বাস্তবায়নের। তবে সময়ে এসেছে অগ্রাধিকারমূলক বাণিজ্য চুক্তির পরবর্তী ধাপ মুক্ত বাণিজ্য চুক্তির দিকে যাওয়ার।’

অভিবাসী শ্রমিক নিয়ে প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘অভিবাসী শ্রমিকরা নিজ দেশের জন্য বিলিয়ন ডলার আয় করে দেয়। ফলে এ ইস্যুটিকে পাশে সরিয়ে রাখা যাবে না। কারণ এর সঙ্গে মানবপাচার, ভয়ভীতি প্রদর্শন ও দালালের দৌরাত্ম্য রয়েছে। এটিকে আমরা গুরুত্ব দেয়ার প্রস্তাব করেছি। একটি প্ল্যাটফর্ম তৈরি করতে চাই, যেখানে অধিবাসী শ্রমিকদের কিছু সমস্যা লাঘব করা যাবে। দালাল ছাড়াই যাতে সহজে ব্যাংকিং চ্যানেলে অর্থ প্রেরণ করতে পারে, তা নিয়ে আমরা কাজ করছি।’

অপর প্রশ্নের জবাবে কু জাফর কু শারি বলেন, “সদস্য রাষ্ট্রগুলোর নাগরিকদের ভিসামুক্ত প্রবেশাধিকারে বিষয়টিকে আমরা গুরুত্ব দিচ্ছি। আমাদের মধ্যে একটি ‘কাস্টমস অ্যাগ্রিমেন্ট’ রয়েছে, যা অংশিক বাস্তবায়ন হয়েছে। এখানে মানবপাচার ও অবৈধ পাচারের মতো বিষয়গুলো জড়িত। ফলে সদস্য রাষ্ট্রগুলোর কিছুটা অস্বস্তি রয়েছে।’

‘ভিসা নিয়ে সদস্য রাষ্ট্রের মধ্যে ডি-৮ চার্টারে ব্যবসায়ীদের জন্য বিশেষ সুবিধা দেয়ার কথা বলা রয়েছে। এ নিয়ে চুক্তিও রয়েছে। আগামী মাসে পাকিস্তানের ইসলামাবাদে এ নিয়ে একটি বৈঠক রয়েছে। আমরা বিশ্বাস করি, এতে সদস্য রাষ্ট্রগুলোকে নিজ নাগরিকদের জন্য ভিসা সহজীকরণে উৎসাহিত হবে’, বলেন ডি-৮ মহাসচিব। সূত্র-জাগোনিউজ


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

আবহাওয়া

COX'S BAZAR WEATHER