শুক্রবার, ০৫ জুন ২০২০, ০৫:৫৪ অপরাহ্ন
নোটিশঃ
আলোকিত কক্সবাজার অনলাইন পত্রিকার  উন্নয়ন কাজ চলছে ; সাময়িক সমস্যার জন্য আন্তিরকভাবে দুঃখিত - আলোকিত কক্সবাজার পরিবারে যুক্ত থাকায় আপনার কাছে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ।

আদালত থেকে গাড়ী ছাড়াতে তৎপর ইয়াবা কারবারী দিলু !

প্রতিবেদক এর নামঃ
  • প্রকাশিত সময় : বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর, ২০১৯
  • ২৫৯ বার পড়া হয়েছে
বিশেষ প্রতিনিধি।
চট্টগ্রাম বহদ্দার হাট থেকে ইয়াবাসহ গাড়ী আটকের মামলায় গ্রেফতার এড়াতে কৌশলে আদালত থেকে ভূয়া মালিক সাঁজিয়ে প্রতারনার মাধ্যমে গাড়ী ছাড়িয়ে নিতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে চিহ্নিত ইয়াবা কারবারী উক্ত মামলার আসামী দিলু সিন্ডিকেট।
পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত ২১ মে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বহদ্দার হাট টার্মিনাল থেকে টেকনাফ পুরাতন পল্লান পাড়ার দিলু’র মালিকানাধীন শাহ আমিন বাস থেকে ১ হাজার পিস ইয়াবা সহ চালক মনির কে আটক করে। সে সময় অপর সহযোগী পুতু ড্রাইভার পালিয়ে যাওয়ায় তাকে আটক করা সম্ভব হয়নি। আটককৃত ইয়াবার মালিক দিলু ড্রাইভার বলে জানিয়েছে নির্ভর‍যোগ্য সূত্র। এ ঘটনায় চাঁদগাও থানায় একটি মাদক মামলা দায়ের হয়েছে, যার মামলা নং (জি আর/৩৭)। উক্ত মামলায় দিলু ড্রাইভার ও একই এলাকার পুতু ড্রাইভার এবং লোহাগাড়ার মনির ড্রাইভার সহ মোট তিন জনকে আসামী আসামী করা হয়েছে। এবং পাচারকাজে ব্যবহৃত ঢাকা মেট্রো ব ১১-০০৬৬ শাহ আমিন গাড়ীটি থানা পুলিশ হেফাজতে রয়েছে বলে জানিয়েছে চাঁদগাও থানা পুলিশ।
বিশ্বস্থ সূত্রমতে, দিলু চট্টগ্রামে গ্রেফতার এড়াতে অতি গুপনে সংশ্লিষ্ট অসাধু কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করে চট্টগ্রাম আদালতে টাকার বিনিময়ে ভূয়া মালিক সাঁজিয়ে কৌশলে আটককৃত গাড়ী ছাড়িয়ে নিতে তৎপরতা শুরু করেছে বলে জানিয়েছে।
এদিকে আইনজীবিদের বরাতে জানাগেছে, থানা কর্তৃক মাদক বা কোন অপরাধে আটক যে কোন যানবাহন আদালত কর্তৃক জামিন নিতে হলে উক্ত যানবাহনের যাবতীত বৈধ মালিকানা কাগজ পত্র সহ যানবাহনের প্রকৃত মালিককে অবশ্যই সশরীরে আদালতে বিচারকের সামনে হাজির হওয়ার বাধ্যবাদকতা রয়েছে।
একটি নির্ভর‍্যোগ্য সূত্রের বরাতে জানা গেছে,  দিলু ও তার পুত্র আব্দুল্লাহ উরফে আব্দুইয়া এবং তার পরিবারের অপরাপর সদস্য মিলে ইয়াবার টাকায় রাতারাতি আঙ্গুল ফুলে কলাগাছে পরিণত হয়েছে। গড়েছেন গাড়ী, বাড়ী, দোকান, জায়গা জমিসহ অঢেল সম্পত্তি। অতচ কয়েক বছর আগেও দিলু ড্রাইভারী করে জীবিকা নির্বাহ করতো এবং নুন আনতে পান্তা ফুরায় অবস্থা ছিলো পরিবারটির। মামলার পর থেকে পুত্র আব্দুইয়া আত্মগুপনে থাকলেও দিলু সহ তার সিন্ডিকেট সদস্যরা অনেকটা প্রশাসনের নাকের ডগায় ওপেন সিক্রেট চলাফেরা করছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ বিভাগের আরো সংবাদ
নিবন্ধনের জন্য আবেদিত
Design and Develop By MONTAKIM
themesba-lates1749691102